নিজস্ব প্রতিবেদক, চুঁচুড়া: গত মঙ্গলবার বছর ১৪’র কিশোরের খন্ডিত দেহ মিলেছিল পূর্ব রেলের ব্যান্ডেল-কাটোয়া শাখার জিরাট রেলস্টেশনের কাছেই। ঘটনার তদন্তে নেমে পুলিশের প্রাথমিক ধারনা হয়েছিল অসাবধানতায় রেললাইন পেরোতে গিয়ে ট্রেনের ধাক্কায় মৃত্যু হয়েছে ওই কিশোরের। কিন্তু পরে তারা জানতে পারেন ঘটনার আগে ওই লাইন দিয়ে যাওয়া কোন ট্রেনের চালকই রেল কর্তৃপক্ষকে ট্রেনের সঙ্গে কোন কিছুর ধাক্কা লাগার কথা জানায়নি। পাশাপাশি পোস্টমর্টেম রিপোর্টে জানানো হয় ওই কিশোরের গলায় ধারালো কোন অস্ত্র দিয়ে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে, যা ট্রেনের সঙ্গে ধাক্কা লাগলে হওয়ার কথা নয়। ঘটনার মোড় ঘোরে কার্যত এখান থেকেই। পুলিশ বুঝতে পারে ওই ঘটনার পিছনে জড়িয়ে রয়েছে একাধিক ব্যক্তি। তারা এটাও বুঝতে পারেন যারা ওই কিশোরের মৃত্যুর ঘটনার সঙ্গে জড়িত তারা ইচ্ছাকৃত ভাবে দেহটি রেললাইনে ফেলে গিয়েছিল যাতে তা ট্রেনের ধাক্কায় মৃত্যু বলে মনে হয়।

ঘটনার তদন্তে নেমে পুলিশ উদ্ধার করে ওই কিশোরের মোবাইলটি। সেটি ঘাঁটাঘাঁটি করতেই তাদের চোখ আটকে যায় একটি ছবিতে। সেটি ওই কিশোরের প্রতিবেশী এক যুবকের স্ত্রীর ছবি। সেটির একটি বিকৃত ছবিও তারা মোবাইটিতে খুঁজে পান। এরপরই দ্রুত এগোতে থাকে তদন্ত। থানায় ডেকে পাঠানো হয় বাপি বিশ্বাস নামে ওই যুবককে। প্রথম প্রথম সে জানায় তার স্ত্রীর ছবি তোলা নিয়ে সে কিছুই জানে না। যদিও পুলিশ গোপনে খবর নিয়ে জানতে পারে যে ওই কিশোর বাপির স্ত্রীর স্নান করার ছবি গোপনে তুলে তা বিকৃত করে পাড়ায় ছড়িয়ে দিয়েছিল। তার জেরে বাপির সঙ্গে তার ঝামেলাও হয়। এরপরই পুলিশ লাগাতার জেরা করতে থাকে বাপিকে। এক সময় সে স্বীকার করে নেয় যে ওই ঘটনার জেরেই তার তিন বন্ধুকে নিয়ে সে ওই কিশোরকে খুন করেছে।

জানা গিয়েছে, ঘটনার দিন জিরাট বাসস্ট্যান্ড এলাকায় ওই কিশোরের বাড়ি থেকে তাকে একটি জায়গায় বাপি ডেকে নিয়ে যায় গোটা বিষয়টি মিটমাট করবে বলে। সেখানে আগে থেকেই উপস্থিত ছিল বাপির তিন বন্ধু গুপী বিশ্বাস, ঝন্টু বিশ্বাস ও রাজা দাস। সেখানেই গলা কেটে খুন করা হয় ওই কিশোরকে। এরপরই তদন্তের জাল গুটিয়ে আনে পুলিশ। বৃহস্পতিবারই গ্রেফতার করা হয় বাপির তিন বন্ধুকেও। এদিনই তাদের চুঁচুড়ায় হুগলি জেলা আদালতে তোলা হবে বলে জানা গিয়েছে। ঘটনার জেরে তীব্র চাঞ্চল্য ছড়ায় এলাকায়। কয়েকশো মানুষ অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে জিরাট থানায় বিক্ষোভও দেখান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here