নিজস্ব প্রতিবেদক, মালদা: নিজের বাড়িতে পড়ে গিয়ে একাংশ অবশ হয়ে গিয়েছিল যুবকের, কিন্তু হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরিবর্তে ভূতে ভর করেছে ভেবে স্থানীয় ওঝার দ্বারস্ত হয় তাঁর পরিবার। ওঝার ঝাড়ফুঁক ও এলোপাথাড়ি মারে গুরুতর অসুস্থ হয়ে অবশেষে প্রাণ গেল যুবকের। ঘটনাটি ঘটেছে পুরাতন মালদার যাত্রাডাঙা গ্রাম পঞ্চায়েতের হালনা মহব্বতপুর গ্রামে। কুসংস্কার ও বুজরুকির জেরে এই ভয়াবহ ঘটনার রীতিমতো চমকে উঠেছেন জেলার বিজ্ঞান মনোভাবাপন্ন মানুষ।

জানা গিয়েছে, রবিবার নিজের বাড়িতে পড়ে যান ৩০ বছর বয়সী যুবক আসাদুল্লাহ শেখ। ঘটনার জেরে শরিরের একদিক অসাড় হয়ে যায় তাঁর। কিন্তু চিকিৎসার জন্য ওই যুবককে হাসপাতালে না নিয়ে গিয়ে, গাজোলে এক ওঝার কাছে নিয়ে যাওয়া হয় তাঁকে। এরপর সোমবার ওই যুবককে বাড়িতে নিয়ে আসা হলে আরও অসুস্থ হয়ে পড়ে সে। ওই অবস্থাতেই মঙ্গলবার আবার ফজলুল নামে মহন্মদপুরের পূর্বপাড়ার এক ওঝাকে ডেকে পাঠানো হয় বাড়িতে। এই ওঝা আবার আগের ওঝার এককাঠি উপরে। চিকিৎসার নামে রীতিমতো শারীরিক নির্যাতন চালানো হয় তাঁর উপরে। চলে বেলাগাম চড় থাপ্পড়। ঘটনার জেরে রুগীর অবস্থা আরও সংকট জনক হয়ে ওঠে। এরপর গ্রামের মানুষের সহযোগিতায় তাকে ভর্তি করা হয় মালদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। মঙ্গলবার সন্ধ্যার সময় সেখানে মৃত্যু হয় তার।

এই একবিংশ শতাব্দীতে দাড়িয়ে এই ঘটনায় রীতিমতো শিউরে উঠেছেন জেলার বিজ্ঞান মনোভাবাপন্ন মানুষ। অধ্যাপিকা চিরশ্রী দাশগুপ্ত বলে%E