ডেস্ক: দীপাবলিতে আতশবাজি পোড়ানোয় ছাড়পত্র দেশের শীর্ষ আদালতের। তবে বেশ কয়েকটি শর্ত আরোপ করেছে সুপ্রিম কোর্ট। সেখানে যেমন বলা হয়েছে যে সমস্ত বাজি তুলনামূলকভাবে কম দূষণ ছড়ায় সেগুলোই বাজারে বিক্রি করার ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি বলা হয়েছে, তবে অনলাইনে কোনও মতেই আতশবাজি বিক্রি করা যাবে না। এছাড়াও বলা হয়েছে বাজির কারখানাগুলিতে কী ধরনের বাজি তৈরি করা হচ্ছে তার উপর কড়া নজরদারি চালাবে প্রশাসন।

তবে সুপ্রিম কোর্ট বাজি পোড়ানোর সময়সীমাও নির্দিষ্ট করে দিয়েছে। বলা হয়েছে, সন্ধ্যা ৮টা ১০ পর্যন্ত আতশবাজি পোড়ানো যাবে। তবে শব্দ বাজির ডসিবেল যাতে কোনওমতেই যাতে ৬৫ ছাড়িয়ে না যায় সেদিকেও কড়া নজরদারি রাখে হবে। তবে এই দীপাবলির সঙ্গে সঙ্গে বড়দিন ও নিউ ইয়ারের দিনে শব্দবাজি পোড়ানো নিয়ে নির্দেশিকা জারি করেছে সুপ্রিম কোর্ট। সেখানে বলা হয়েছে রাত ১১.৪৫ থেকে মধ্য রাত অর্থাৎ ১২.৪৫ পর্যন্ত বাজি পোড়ানো যাবে। ওই সময় পেরিয়ে যাওয়ার পর বাজি পোড়ালে হতে পারে শাস্তি। মূলত রাজধানীতে দূষণের মাত্রা দিন দিন বৃদ্ধি পাওয়াতেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। শুধুমাত্র দিল্লিতেই নয় পাশাপাশি কলকাতেও একই হারে বাড়ছে দুষণের মাত্রা।

এদিন সুপ্রিম কোর্টে বিচারপতি একে সিকরি ও অশোক ভূষণের বেঞ্চ এদিন জানিয়ে দেয়, গোটা দেশের জন্যই এই নির্দেশ লাগু হবে। আর নির্দেশিকা যদি অমান্য হয়, তাহলে প্রশাসন উপযুক্ত ব্যবস্থা নিতে বাধ্য হবে। কারণ শুধুমাত্র বায়ুদূষণই নয়, বাজির আওয়াজে অনেক হৃদ্ররোগীরও মৃত্যু হয়। তাই সেই সমস্ত বিষয়ে নিরাপত্তা দিতেই সুপ্রিম কোর্টের তরফে মঙ্গলবার এই রায় ঘোষণা করা হয়েছে। তবে এখন দেখার অপেক্ষা আদৌ দীপাবলি বা নিউ ইয়ার ইভে এই সমস্ত নির্দেশিকা মেনে চলা হয় কিনা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here