ডেস্ক: রাফাল যুদ্ধবিমান নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে কংগ্রেস তথা বিরোধীদের চূড়ান্ত তরজায় হঠাৎই ছন্দপতন। ছন্দপতন এই কারণেই বলতে হয় কারণ রাফাল নিয়ে বিরোধীদের যত রকমের তোপ ছিল তা আরও সঙ্গবদ্ধ হত আদালতের রায়ের ওপরই। কিন্তু সুপ্রিম কোর্টে রাফাল মামলার শুনানিতে যা হল তা কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে পৌষমাস, বিরোধীদের কাছে সর্বনাশ।

এদিন সুপ্রিম কোর্টে রাফাল নিয়ে জনস্বার্থ মামলার শুনানি হয় প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ ও বিচারপতি এস কে কউল ও বিচারপতি কে এম জোসেফের এজলাসে৷ শুনানিতে সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়, রাফাল ইস্যুতে এখনই কেন্দ্রীয় সরকারকে আদালত কোনও নোটিশ পাঠাবে না। পাশাপাশি রাফাল যুদ্ধবিমানের দাম বা প্রযুক্তি নিয়েও কোনওকিছু জানতে চায় না শীর্ষ আদালত। শুধুমাত্র চুক্তির বৈধতা সম্পর্কে আদালতকে যুক্তি দেওয়া হলেই তা যথেষ্ট। তবে যুদ্ধবিমানটির ক্রয় প্রক্রিয়ার বিষয়ে জানতে চেয়েছে আদালত৷ চলতি মাসের ২৯ তারিখের মধ্যে এই সংক্রান্ত তথ্য জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে কেন্দ্রীয় সরকারকে৷ ৩১ অক্টোবর এই মামলার পরবর্তী শুনানি৷

শীর্ষ আদালতের এই রায়ের পর স্বভাবতই ব্যাকফুটে বিরোধীরা। সভাপতি রাহুল গান্ধীর নেতৃত্বে কংগ্রেস যেভাবে রাফাল ইস্যুতে নমো সরকারের বিরুদ্ধে ঘুঁটি সাজিয়েছিল তা বলতে গেলে আপাতত কার্যহীন হয়ে পড়েছে। প্রসঙ্গত, রাফাল ইস্যুতে একের পর এক বাক্যবাণে জর্জরিত হয়েছেন রাহুল গান্ধী, নির্মলা সীতারমণ সহ খোদ নরেন্দ্র মোদীও। আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে রাফালকেই সামনে রেখে কার্যত ভোটযুদ্ধে নামার চিন্তাভাবনা রয়েছে কংগ্রেসের। তবে সুপ্রিম কোর্টের রাফাল নিয়ে এই রায় কতটা চাপে ফেলবে বিরোধীদের বা আদৌ ফেলবে কিনা, তার জন্য লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল পর্যন্ত তো অপেক্ষা করতেই হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here