খেলা অথবা রাজনীতি যোগ্য লোকের সবসময় কদর বেশি: সৌরভ

0
kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: বাইশ গজের খেলার মাঠে হোক আর রাজনীতির খোলা ময়দানে সব জায়গাতেই যোগ্য লোকের সবসময় চাহিদা বেশি থাকে৷ এমনটাই বললেন ভরাতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল (বিসিসিআই) এর সভাপতি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়৷ তিনি ছিলেন কলকাতার যুবরাজ(প্রিন্স অব ক্যালকাটা)এখন হলেন আক্ষরিক অর্থেই মহারাজ৷ তাঁর ডাক নাম মহারাজ৷ এবার ভারতীয় ক্রিকেটের শাসক হলেন তিনি৷ অবশ্য দশ মাসের জন্য৷ তবে এইটুকু সময় নিজের জাত চেনানোর বিষয়ে আত্ম বিশ্বাসী ইউনিভার্সাল দাদা৷ স্টুডিও নয় এবার তাঁর প্রশাসক হিসেবে দাদাগিরি দেখবে ভারত তথা ক্রিকেট বিশ্ব৷ প্রাক্তন ব্রিটিশ জাতীয় দলের ক্রিকেটার কিংবদন্তি জিওফ্রে বয়কট জগমোহন জডালমিয়াকে কিং ভাবতেন৷ আজ তাঁর যোগ্য উত্তরসূরি তাঁরই স্নেহধ্ন্য, তাঁরই শহর কলকাতার সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়৷

সৌরভকে বলা হয় কামব্যাক ম্যান৷ যেখানে সবাই হারিয়ে যায় সেখান থেকে তিনি আবার উঠে আসেন৷ তাঁর পুরো জীবনকে বলা যায় এইভাবেও ফিরে আসা যায়৷শ্রীনিবাসনের প্রার্থীকে স্লগ ওভারে হারিয়ে মুম্বইয়ে বিসিসিআই এর মহারাজ হিসাবে নিজেকে প্রতিষ্টা করেছিলেন মহারাজ৷ অবশ্য চেন্নাইয়ের এই শ্রীনি বরাবরাই ডালমিয়া বিরোধী হিসাবে পরিচিত৷ তিনি কোনওদিনও সৌরভের শুভানুধ্যায়ী নন৷তবু তিনি বহু চেষ্টা করেও পারলেন না নিজের পছন্দের লোককে বারতীয় ক্রিকেট নিয়ামক সংস্থার মাথা করতে৷ এরজন্য অবশ্য এক গুজরাতির অবদান আছে তিনি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ৷ তাঁর ছেলেকে সেক্রেটারি করতে গিয়ে সৌরভকে বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট করলেন তিনি৷

অবধারিতভাবে উঠে আসল এবার তবে কী সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় বিজেপিতে নাম লেখাচ্ছেন? এর আগে সেই ২০১৪ সালে প্রবল মোদী হাওয়াতেও গুজব রটেছিল সৌরভ বিজেপির টিকিটে লোকসভায় ভোটে লড়বেন৷ এমনকী ভোটে জিতলে তাঁকে ক্রীড়ামন্ত্রী করা হবে এমনটাও শোনা গিয়েছিল৷ এবাররে গুজব ২০২১ সালে তৃণমূলকে ক্ষমতাচ্যুত করে বাংলা দখল করলে বিজেপির তুরুপের তাস হবেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়৷ তিনিই হবেন বাংলার মমতা পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী৷ তবে এসব গুজব একেবারে বাপি বাড়ি যা স্টাইলে মাঠের আবইরে ফেলে দিলেন বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট৷ তাঁর সোজা কথা, দিদি হোক বা দাদা খেলার মতোই রাজনীতিবিদরাও সবসময় যোগ্যতম লোকটাকে খোঁজে৷ তবে তিনি সাফ জানান, অমিত শাহর সঙ্গে বৈঠকে কোনও রাজনীতির প্রসঙ্গ ওঠেইনি৷ তাঁর এই দাবিকে সমর্থন করেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি তথা কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ স্বয়ং৷ উল্লেখ্য তাঁর দশমাসের কার্যকাল শেষ হবে ২০২০ সালের আগস্টে৷ তারপর তিন বছর তিনি কোনও প্রশাসনিক পদে থাকতে পারবেন না৷ আর ২০২১ সালে বাংলায় বিধানসভা নির্বাচন৷ তাই দুয়ে দুইয়ে চারের মতো রাজনীতিতে যোগ্য লোক হয়ে উঠতেও পারেন দাদা৷ কে বা বলতে পারে খেলার মাঠ ছেড়ে রাজনীতির খোলা মাঠে মহারাজকীয় কীর্তি ভবিষ্যতে দেখা যেতেও পারে৷উল্লেখ্য তাঁ ঘনীষ্ট বৈশালী ডালমিয়া কিন্তু তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন৷ অতএব…… সবই সম্ভব৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here