abhisek

‘যে পাপ ভাইপো করেছে, তার ফল ভো

মহানগর ডেস্ক: তমলুকের সভা থেকে তিনি বলেছিলেন ‘কয়লাকাণ্ডে তাইল্যান্ডের ব্যাংককে কত ভাট(তাইল্যান্ডের মুদ্রা) জমা পড়ছে তার হিসাব দিতে হবে।’ ভরা জনসভায় দাঁড়িয়ে সে দিন তৃণমূলের যুব নেতা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিশানা করে ঠিক এই ভাষাতেই আক্রমণ শানিয়েছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। আর আজ তাইল্যান্ডের ব্যাংককে সন্দেহজনক অর্থ লেনদেনের সম্পর্কে অভিষেকের স্ত্রী রুজিরা বন্দ্যোপাধ্যায়কে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য কালীঘাটের বাড়িতে নোটিশ পাঠাল কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা। এ দিনের ঘটনা প্রসঙ্গে শুভেন্দু বলেন, ‘লালা ওরফে অনুপ মাঝির টাকা যে তোলাবাজ ভাইপোর কাছে যাচ্ছে এটা তো আমি আগেই বলেছিলাম। তাইল্যান্ডের ব্যাংককে ভাট(তাইল্যান্ডের মুদ্রা) জমা পড়ছে সেটা তো আমি আগেই বলেছিলাম।

এরপরেই তিনি বলেন, ‘নারুলা যে আসলে কে তা ক্রমশ প্রকাশ্য। কিন্তু যে পাপ ভাইপো করেছে তাঁর ফল তাঁকে ভোগ করতেই হবে।’

অন্যদিকে, কয়লা কাণ্ডে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্ত্রীকে সিবিআই নোটিস দেওয়ার ঘটনাকে ‘রাজনৈতিক প্রতিহিংসা’ হিসাবেই দেখছে তৃণমূল। পাশাপাশি ভয় দেখানোর রাজনীতির অভিযোগও তুলেছেন সৌগত রায়, কুণাল ঘোষরা। ভোটের সময় এই নোটিশ নিয়ে প্রশ্ন তুলে সেটি আরও আগে দেওয়া উচিত ছিল বলে মন্তব্য সিপিএমের। নিরপেক্ষ তদন্তের দাবি তুলেছে কংগ্রেস। অন্য দিকে রাজ্য বিজেপি নেতৃত্বের বক্তব্য, আগে থেকেই তদন্ত চলছিল। প্রতিহিংসার অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে উড়িয়ে দিয়েছেন রাজ্য বিজেপি নেতৃত্ব।

রবিবারই অভিষেকের স্ত্রী রুজিরা নারুলাকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে চেয়ে নোটিস পাঠিয়েছে সিবিআই। ঘটনাচক্রে রবিবার সিবিআই-এর এই নোটিসের আগের দিনই কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের বিরুদ্ধে সমন জারি করেছে বিধাননগরের বিশেষ আদালত। অভিষেকের মামলার জেরেই শাহের বিরুদ্ধে এই সমন জারি হয়েছে। তৃণমূলের অভিযোগ, অমিত শাহের বিরুদ্ধে সমন জারি হওয়ার প্রতিশোধ নিতেই অভিষেকের স্ত্রীকে নোটিস ধরানো হয়েছে। তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ বলেন, ‘‘অমিত শাহ-কে সমনের পরে এমন কিছু একটা প্রত্যাশিতই ছিল। বিজেপির সব শরিক দল ছেড়ে গিয়েছে। একমাত্র অনুগত রয়েছে সিবিআই আর ইডি।’’ বর্ষীয়ান তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায় বলেন, ‘‘বিজেপির দু’টোই অস্ত্র— সিবিআই এবং ইডি। সেই দুই কেন্দ্রীয় সংস্থাকে দিয়ে ভয় দেখানোর চেষ্টা করবে। কিন্তু আমরা বলতে চাই এ ভাবে ভয় দেখানো যাবে না। আইনি লড়াই লড়বেন অভিষেক। দলও এর বিরুদ্ধে লড়াই করবে।’’

রাজ্য বিজেপি নেতৃত্ব অবশ্য প্রতিহিংসার অভিযোগ মানতে নারাজ। দলের নেতা শমীক ভট্টাচার্য বলেন, আগে থেকেই তদন্ত চলছিল। এখন নোটিস দেওয়া হয়েছিল বলে প্রতিহিংসার অভিযোগ বলে দেখানোর চেষ্টা হচ্ছে।’’ দলের আর এক নেতা জয়প্রকাশ মজুমদার বলেন, ‘‘ভারতীয় আইন ও বিচার ব্যবস্থার হাত অনেক লম্বা। আশা করি অভিষেক তদন্তে সহায়তা করবেন।’’ আসানসোলের সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় বলেন, ‘‘ঠিক জায়গাতেই পৌঁছেছে। কান টানলে মাথা আসারই কথা। কোন মাথা আসে, সেটা দেখতে হবে।’’

গ করতেই হবে’, সিবিআই নোটিশ প্রসঙ্গে শুভেন্দু

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here