জল সংরক্ষণের সভায় নদীর জবরদখল নিয়ে সরব রাজ্যেরই মন্ত্রী! অস্বস্তিতে প্রশাসন

0
107
kolkata bengali news

নিজস্ব প্রতিবেদক, বর্ধমান: ‘একটু একটু করে বিক্রি হয়ে যাচ্ছে নদী। রেকর্ড হয়ে যাচ্ছে। নদী আবার রেকর্ড হয় নাকি?’ রবিবার বর্ধমান জেলা প্রেস ক্লাবের উদ্যোগে আয়োজিত জল সংরক্ষণ নিয়ে বক্তব্য রাখতে গিয়ে এভাবেই আত্মসমালোচনায় মুখর হলেন রাজ্যের প্রাণী সম্পদ বিকাশ দপ্তরের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ। তিনি বলেন, কালনা মহকুমার আধাঁরে নদী, মুড়িগঙ্গা নদীর রেকর্ড হয়ে গেছে। কোনটা ২০ বছর আগে আবার কোথাও ৫ বছর আগে। তিনি এব্যাপারে ভূমি দপ্তরের সঙ্গে কথাও বলেছেন। কিভাবে নদী ব্যক্তিগত মালিকানায় রেকর্ড হয় তিনি জানতে চেয়ে তা বাতিল করার আবেদনও করেছেন। এব্যাপারে সকলকেই এগিয়ে আসার আহ্বান জানান এদিন স্বপনবাবু।

জল সংরক্ষণের প্রসঙ্গে বক্তব্য রাখতে গিয়ে স্বপনবাবু রবিবার বলেন, ‘জল সংরক্ষণের ক্ষেত্রে সবার আগে দরকার জলের অপচয় বন্ধ করা। সে ব্যাপারে সকলকেই পথে নামতে হবে। কয়লাকে সম্পদ হিসাবে আমরা দেখলেও জলকে দেখতে শিখিনি। কিন্তু এখন সে সময় এসেছে। এব্যাপারে আন্তরিকভাবেই পথে নামতে হবে। জল সংরক্ষণের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত গাছ লাগানোর বিষয়টিও। আমার খারাপ লাগে গাছ লাগানো এবং বাঁচানোর থেকে সকলেরই বেশি আগ্রহ গাছ কাটার প্রতি।’

স্বপনবাবু বিশুদ্ধ পানীয় জল সরবরাহের ক্ষেত্রে এলাকাভিত্তিক জলাশয়, নদীগুলিকে ব্যবহার করার ওপর জোর দেওয়ার জন্য ডাক দেন। তিনি বলেন, ‘জল সংরক্ষণের জন্য কয়েকটা মিছিল কিংবা ঘটা করে সভা করলে হবে না। প্রয়োজন এব্যাপারে গণ আন্দোলন। রাজনীতি নির্বিশেষে গণআন্দোলন করতে হবে।’ রবিবারের এই সভায় অন‌্যান্যদের মধ্যে হাজির ছিলেন জেলা পরিষদের সভাধিপতি শম্পা ধাড়া, কর্মাধ্যক্ষ বাগবুল ইসলাম, উত্তম সেনগুপ্ত, মহম্মদ ইসমাইল, বর্ধমান পুরসভার এক্সিকিউটিভ অফিসার অমিত গুহ, জেলা তথ্য ও সংস্কৃতি আধিকারিক কুশল চক্রবর্তী, প্রেস ক্লাবের সম্পাদক শরদিন্দু ঘোষ প্রমুখরাও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here