ডেস্ক: উচ্চমাধ্যমিক পাশের পর কলেজে ভর্তি হতে গেলে দাদাদের নজরানা আদায়ের ঘটনা নতুন নয়। স্কুলের গণ্ডি পেরিয়ে শহরের কলেজগুলিতে পা রাখা পড়ুয়াদের কাছ থেকে ভর্তির দরুন আদায় করা টাকার পরিমাণটা হাজার পেরিয়ে লাখের গণ্ডিতেও ছুঁই ছুঁই করে। চিরাচরিত এই প্রথা ভাঙতে সরকার তৎপর হয়ে অনলাইনে ফর্মফিলাপ চালু করলেও লাভ কিছু হয়নি। নজর এড়িয়ে ফাঁক ফোঁকর দিয়ে অবাধে চলছে দাদাদের দাদাগিরি ও ভর্তির নামে ব্যবসা।

তবে এবার কড়া হাতে বিষয়টিতে লাগাম টানতে তৎপর হলেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী। কলেজে ভর্তির নামে টাকা তোলার অভিযোগে দুই যুবক গ্রেপ্তার হওয়ার পর, রাজ্যের পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারকে তিনি স্পষ্ট নির্দেশ দেন, ভর্তির নামে ছাত্রদের থেকে টাকা নেওয়ার ঘটনা ঘটলে পুলিশ যেন দ্রুত পদক্ষেপ নেয়।’ একইসঙ্গে ছাত্রদের থেকে টাকা নেওয়ার অভিযোগে সম্প্রতি, যে দুইজন ছাত্র নেতাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে তাদের যেন করা শাস্তি হয় সে বিষয়টাও দেখতে বলেছনে তিনি। একইসঙ্গে সোমবার থেকে কলেজগুলিতে কড়া পুলিশ পিকেটিংয়ের ব্যাবস্থা করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কোনও রকম অনিয়মের ঘটনা ঘটলে সাথে সাথে যেন ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

সম্প্রতি, টাকার বিনিময়ে কলেজে ভর্তি করে দেওয়া হবে বলে এক পড়ুয়ার কাছ থেকে মোটা টাকা দাবি করে দুই অভিযুক্ত রীতেশ এবং লালা সাহেব। এমনকি টাকা না দিলে খুনের হুমকিও দেওয়া হয় মণিন্দ্র কলেজে ভর্তি হতে ইচ্ছুক সঞ্জীব দাস নামের ওই পড়ুয়াকে। এই ঘটনার পরই পুলিশে অভিযোগ দায়ের করে সঞ্জীব। ঘটনার জেরে গ্রেপ্তার করা হয় দুই অভিযুক্তকে। সেই ঘটনার পর টাকা নিয়ে ভর্তির বিষয়ে লাগাম টানতে তৎপর হলেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here