মহানগর ওয়েবডেস্ক: ভাইরাসের উৎস যখন বোঝা যায় না, বা তা কোথা থেকে এল ধরা যায় না, তখনই কমিউনিটি ট্রান্সমিশনের ভয় তৈরি হয়। প্রথমদিকে ভারতে যারা করোনা আক্রান্ত হচ্ছিলেন সকলের কোনও না কোনও ভাবে বিদেশ যোগ ছিল। ফলে কীভাবে তা ছড়াল সেটা স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছিল। কিন্তু শেষ তিনদিনে পরিস্থিতি দ্রুত বদলেছে। হু হু করে বেড়েছে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তদের সংখ্যা। তার থেকেও গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, এমন অনেকের শরীরেই ভাইরাস মিলছে যার উৎস চিহ্নিত করা যাচ্ছে না। ফলে খুব শিগগির তৃতীয় স্টেজে পৌঁছে যাওয়ার ভয় ভারতের উপর ঘুরছে। সম্প্রতি তামিলনাড়ুতে ২০ বছর বয়সী এক দিল্লির যুবকের শরীরে মিলেছে করোনা ভাইরাস। কিন্তু তার শরীরে কীভাবে এই ভাইরাস এল সেটা ধরতে পারছে না সরকার। ফলে কমিউনিটি ট্রান্সমিশনের এই ভয়ঙ্কর ইঙ্গিত ইতিমধ্যেই দেশের বাতাসে ছড়িয়ে পড়েছে।

সূত্রের খবর, ট্রেনে করে দিল্লি থেকে চেন্নাই গিয়েছিল ওই যুবক। তারপরই তার শরীরে কোভিড ১৯-র উপস্থিতি মেলে। কিন্তু ওই যুবকের শরীরে কোথা থেকে সেই ভাইরাস সংক্রামিত হল তা অজানা। ফলে যেখান থেকে ওই যুবকের শরীরে ভাইরাস ঢুকেছে, তা অন্যদের শরীরেও প্রবেশ করতে পারে বলে অনুমান করছেন চিকিৎসক মহল। ঠিক এই আশঙ্কা থেকেই তৈরি হয়েছে স্টেজ তিনে পৌঁছে যাওয়ার ভয়। যেখানে বোঝা যাবে না কীভাবে সংক্রমণ হচ্ছে অথচ দাবানলের গতিতে ভাইরাস ছড়িয়ে যাবে। আইসিএমআর (ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব মেডিক্যাল রিসার্চ) জানিয়েছে, ‘সংক্রামিত যুবকের কোনও ভ্রমণের ইতিহাস নেই। ফলে সে কার কার স্পর্শ পেয়েছে তা খুঁজে বের করা অত্যন্ত কঠিন কাজ। তাও আমরা সেই চেষ্টাই করছি।’

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের তরফে যদিও এখনও কোনও ধরনের কমিউনিটি ট্রান্সমিশনের ইঙ্গিত দেওয়া হয়নি। যাদের শরীরে ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গিয়েছে প্রত্যেকেরই কোনও না কোনও ভাবে বিদেশ যোগ রয়েছে বলেই দাবি। শুধু এই কেসে কমিউনিটি ট্রান্সমিশনের ইঙ্গিত পাওয়া গিয়েছে। তবে পুরো বিষয়টাই এই মুহূর্তে তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। আইসিএমআর আশা করছে, হয়তো ওই যুবক এমন কোনও ব্যক্তির সংস্পর্শে এসেছিল যিনি বিদেশ ফেরত, কিন্তু সে বুঝে উঠতে পারেনি। ফলে কমিউনিটি ট্রান্সমিশন নিয়ে এখনই ভয় পাওয়ার দরকার নেই বলেই জানানো হয়েছে। তা সত্ত্বেও এই মামলাটি সামনে আসার পর আতঙ্ক ও আশঙ্কা আর তীব্রতর হয়েছে। কেননা একবার তা শুরু হলে সবকিছুই কার্যত সরকারের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাবে। তখন তা আটকানো অসম্ভব হয়ে পড়বে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here