kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: চাঁদ ছোঁয়ার উদ্দেশে ইসরোর চন্দ্রাভিযান ২ নাকি ৯৮ শতাংশ সফল হয়েছে। এমনটাই দাবি করেছেন ইসরোর চেয়ারম্যান তথা প্রধান কে শিবন। কিন্তু শিবনের কথা মতো ৯৮ শতাংশ সাফল্য নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন লেখিকা তসলিমা নাসরিন। তাঁর বক্তব্য খুবই সোজাসাপ্টা। ইসরোর মূল লক্ষ্য ছিল ল্যান্ডার বিক্রমকে চাঁদে নামানো। সেটাই যখন ঠিকমতো হয়নি তখন ৯৮ সাফল্য কীভাবে? এটাই প্রশ্ন বিতর্কিত এই বাংলাদেশি লেখিকার।

৭ সেপ্টেম্বর চাঁদের মাটিতে সফট ল্যান্ডিং হওয়ার কথা ছিল বিক্রমের। বিক্রম চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে নামার পর ল্যান্ডার থেকে প্রজ্ঞান বেরিয়ে আসার কথা ছিল। সেই প্রজ্ঞানই চাঁদের মাটি সহ অন্যান্য নমুনা সংগ্রহ করবে বলে জানা গিয়েছিল। কিন্তু ল্যান্ডিংয়ের কয়েক মুহূর্ত আগে কী হয়েছিল তা এতদিনে সকল ভারতবাসির জানা। এরপর হাজারো চেষ্টা করেও যোগাযোগ স্থাপন করা যায়নি। পরে অরবিটারে থার্মাল ইমেজের মাধ্যমে জানা যায় নির্ধারিত জায়গা থেকে ৫০০ মিটার দূরে আছড়ে পড়েছে বিক্রম। ফলে যন্ত্রাংশ বিকল হয়ে গিয়ে থাকতে পারে। এই প্রসঙ্গেই কথা বলতে গিয়ে ইসরোর চেয়ারম্যান ব্যাখ্যা দিয়ে জানান, এই অভিযানকে আমরা দু’ভাগে ভাগ করেছিলাম। একটা বিজ্ঞান নির্ভর আরেকটা প্রযুক্তি নির্ভর। বিজ্ঞানের দিক দিয়ে আমরা পুরোপুরি সফল। প্রযুক্তিগত দিক দিয়ে আমরা প্রায় অনেকটাই সফল হয়েছিল। এই সাফল্যকে ৯৮ শতাংশ হিসেবে ধরাই যায়।

এখানেই প্রশ্ন তুলছেন তসলিমা। এদিন নিজের ফেসবুকে তিনি লিখেছেন, চন্দ্রযান ২-এর হিরো ছিল বিক্রম। আর আসল কাজ ছিল বিক্রমকে চাঁদে নামানো। সফলভাবে চাঁদে অবতরণের আগেই যদি বিক্রম ভেঙেচুরে যায় তাহলে কীভাবে এই মিশনকে সফল বলা যেতে পারে। এই প্রশ্নই তোলেন তসলিমা। চন্দ্রযান ২ যদি একটা সিনেমা হয় আর বিক্রম যদি এর হিরো হয়, তবে তো হিরোর আবির্ভাবের আগেই যদি হিরোর মৃত্যু ঘটল। তাহলে একে সফল বলা হচ্ছে কেন? দেখুন তসলিমা নাসরিনের সেই ফেসবুক পোস্ট…

‘ইসরোর চেয়ারম্যান কে শিভান বলছেন চন্দ্রযান-দুই শতকরা ৯৮ ভাগ সফল। চন্দ্রযান-দুই য়ের আসল কাজই তো ছিল চাঁদে বিক্রমকে নামানো। বিক্রম তো হারিয়ে গেছে, হ্যাঁ হারিয়েই গেছে। এত তীব্র গতিতে চাঁদের মাটিতে বিক্রম নেমেছিল যে ওই গতি বিক্রমকে ভেঙ্গেচুরে দিয়েছে। তারপরও কী হিসেবে মিশনকে ৯৮% সফল বলছেন মাননীয় চেয়ারম্যান জানিনা। ইসরোর উপদেষ্টা তপন মিশ্র বলেছেন, চন্দ্রযান-এক এ যে বিজ্ঞানীরা ছিলেন, চন্দ্রযান-দুই এ তাঁদের নেওয়া হয়নি, নতুন বিজ্ঞানী নেওয়া হয়েছে, ভুলটা এখানেই। অরবিটারের ব্যাপারটা ঠিক আছে, চাঁদের চারদিকে ঘুরবে, ফটো নেবে। কিন্তু বিক্রম তো হিরো ছিল। হিরোর আবির্ভাবের আগেই যদি হিরোর মৃত্যু ঘটে, তাহলে চলচ্চিত্রের হাল কী দাঁড়াবে? নেক্সট প্রজেক্ট-এ আশা করছি ভুল টুল শুধরে নেওয়া হবে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here