debolina
দেবলীনা এবং তথাগত।
debolina
দেবলীনা এবং তথাগত।

মহানগর ডেস্ক: দুর্গাপুজোর নবমীর দিনে ‘গো-মাংস’ খাওয়ার বিতর্কে এবার আসরে নামলেন অভিনেত্রী দেবলীনা দত্তের স্বামী অভিনেতা তথাগত মুখোপাধ্যায়। একটি ফেসবুক পোস্টের মাধ্যমে তিনি বলেন যে আদি হিন্দুধর্মে অর্থাৎ বেদে ‘গো-মাংস’ খাওয়া নিষিদ্ধ এ কথা কোথাও লেখা নেই।

এই বিষয়ে তিনি লেখেন, ‘আপনারা তো এতদিন ধরে  বেদের বিরোধিতা করেছেন,আগামী দিনেও কি  সেটাই করবেন, আর বলবেন,হিন্দু ধর্ম, নাকি!

বেদের কোন কোন অধ্যায় ও শ্লোকে গরু ও অনান্য প্রাণীর মাংস খাওয়ার বিধান রয়েছে।আমি বা অন্য কেউ না হিন্দু ধর্মগ্রন্থ বলছে।

বৃষের মাংস (বেদ-১/১৬৪/৪৩), মহিষের মাংস (বেদ-৫/২৯/৮), অজের মাংস (বেদ-১/১৬২/৩), গো-মাংস (বেদ-৪/১/৬), ভগবান ইন্দ্রের জন্য গো-বৎস অর্থাৎ বাচ্চা গরুর মাংস উৎসর্গ করা হয়েছে (ঋকবেদ ১০/৮৬/১৪), তাছাড়া বেদজ্ঞান লাভের জন্য, স্বাস্থ্যবান সন্তান লাভের জন্য ষাঁড়ের মাংস ভক্ষনের নির্দেশ তো ঋকবেদেই রয়েছে।’’

এখানেই না থেমে তিনি বলেন, ‘কারোর চোদ্দগুষ্ঠি উদ্ধার করার আগে একটু নিজেদের ধর্মগ্রন্থগুলো পড়ুন। সেখানে আরো অনেককিছুই লেখা আছে। এই ফেসবুকে ধর্মরক্ষাকারী বলে প্রতিনিয়ত যারা আকাশ বাতাস মুখরিত করেন তারা হিন্দুধর্মের শাস্ত্রগ্রন্থগুলি কতটা পড়েছেন সেই নিয়ে সন্দেহ থেকেই যায়। অধিকাংশই বোধহয় পড়েননি। কারন এরা প্রতিদিন নিজেরাই বিধর্মী কাজ করেন নিজের অজান্তেই। একটু খোলসা করেই বলি। অধিকাংশই বাঙ্গালী মাছ খান। মাছ মানে মৎস আবার ভগবান বিষ্ণুর প্রথম অবতার। অথচ প্রতিদিনই এই মৎস নিধন চলছে। শুয়োর অর্থাৎ বরাহ সেও ভগবান বিষ্ণুর আর এক অবতার। সেই শুয়োরের মাংসও আজকাল অনেকেই খান। হিন্দু ধর্মে বিভিন্ন অবতারের কথা বলা হলেও,হিন্দু ধর্মশাস্ত্রগুলোর কোনটিতেই কোথাও গরু অবতারের কথা লেখা নেই।’

প্রসঙ্গত, গরুর মাংস খাওয়া নিয়ে একটি চ্যাট শোয়ে মতামত দেওয়ায়  অভিনেত্রী দেবলীনা দত্ত খুন আর গণধর্ষণের হুমকি পাচ্ছেন। বাদ পড়েনি তাঁর মা। তাঁকে নিয়েও চলছে ন্যাক্কারজনক মন্তব্য। আজ বিকেলেই সমস্ত স্ক্রিনশট নিয়ে যাদবপুর থানায় এফআইআর করবেন অভিনেত্রী দেবলীনা।

ঘটনার সুত্র এক চ্যানেলের টক শোতে। দেবলীনা বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষকে প্রশ্ন করার সময় গায়ক,পরিচালক অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায়ের কথার সূত্র ধরে জানান, নিরামিষভোজী হলেও প্রয়োজনে তাঁর বাড়িতে গিয়ে নবমীর দিন দেবলীনা গরুর মাংস রান্না করে দিতে পারন। তিনি মনে করেন, খাদ্য  খাদ্যাভাস এবং ধর্ম বিষয়ে তিনি এতটাই ছূৎমার্গহীন। সে দিনের পর থেকেই এ নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ধুন্ধুমার অশ্লীল আক্রমণ শুরু হয়ে যায়। অভিনেতা তথাগত মুখোপাধ্যায় ফেসবুক পোস্টে লেখেন, “অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায় এবং আমার স্ত্রী দেবলীনা দত্তের বিরুদ্ধে মূল অভিযোগ তারা গোমাংস খেতে পারেন,রান্নাও করতে পারেন সে বিষয়ে টেলিভিশনে কেন কথা বলবেন?”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here