ডেস্ক: যে চা বিক্রির জন্য ২০১৪ সালে দেশবাসীর সুনজরে পড়েছিলেন নরেন্দ্র মোদী। ক্ষমতায় আসার পর চালু করেছিলেন ‘চায়ে পে চর্চাও’। সবমিলিয়ে চা নিয়ে কিছুটা হলেও রয়েছে বিজেপির দুর্বলতা। সেই চা নিয়েই দুর্নীতির অভিযোগ উঠল বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে। মহারাষ্ট্রে বিজেপির দেবেন্দ্র ফড়ণবীস সরকারের বিরুদ্ধে এই চা দুর্নীতির অভিযোগ তুলল কংগ্রেস।

কংগ্রেসের অভিযোগ, মহারাষ্ট্রে মুখ্যমন্ত্রীর অফিসে প্রতিদিন ১৮ হাজার ৬০০ কাপ চা পান করা হয়। তথ্য জানার অধিকার আইনে বিষয়টি জানতে পেরে মুম্বই কংগ্রেসের প্রধান সঞ্জ্য নিরুপমের দাবি, ‘গত তিন বছরে নাটকিয় ভাবে বেড়েছে মুখ্যমন্ত্রীর অফিসে চা পানের খরচ। ২০১৫-১৬ সালে যেখানে চা পানের খরচ ছিল ৫৮ লক্ষ টাকা। ২০১৭-১৮ সালে সেই খরচটাই পৌঁছেছে ৩.৪ কোটি টাকা। তার মানে এই এক বছরে চা পানের খরচ বেড়েছে ৫৭৭ শতাংশ। যার মানে প্রতিদিন গড়ে ১৮ হাজার ৫৯১ কাপ চা পান করা হয় মুখ্যমন্ত্রীর সচিবালয়ে। এট কিভাবে সম্ভব?

একইসঙ্গে দেবেন্দ্র ফড়ণবীস সরকারকে কটাক্ষ করে তিনি বলেন, ‘তাহলে কি চা খান মুখ্যমন্ত্রী? গ্রিন টি, ইয়েলো টি নাকি সোনার চা? একদিকে যখন মহারাষ্ট্রে রোজ চাষি মৃত্যুর ঘটনা ঘটছে তখন নিজের দপ্তরে বসে ‘স্বর্ণ চা’ খেয়ে চলেছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। নিজেকে চা-ওয়ালা পরিচয় দিয়ে গর্ব বোধ করেন দেশের প্রধানমন্ত্রী সেই চা নিয়েই শেষে এই কান্ড করছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী।’ উল্লেখ্য, এর আগেও মহারাষ্ট্রে মুখ্যমন্ত্রীর সচিবালয়ে ইঁদুর ও পোকামাকড় হত্যার বরাত দেওয়া নিয়ে ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ তুলেছিল কংগ্রেস।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here