মহানগর ওয়েবডেস্ক: করোনা প্রাণে বেড়েছে যত না, তার চেয়ে অনেক বেশি মেরেছে ভাতে। তথ্য বলছে দীর্ঘ লকডাউন ভারতবর্ষে ১২ কোটি চাকরি খেয়েছে। তবে তার খিদে মেটেনি এখনও, বেসরকারি সংস্থাগুলোতে চাকরি হারানোর সংখ্যা বেড়ে চলেছে ক্রমাগত ভাবে। এদিন তারই এক টুকরো ছবি দেখা গেল তেলেঙ্গানায়। লকডাউনের জেরে বেসরকারি স্কুলে শিক্ষকতার চাকরি খুইয়ে স্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে ঠেলাগাড়িতে খাবার বিক্রি করছেন অসহায় শিক্ষক। সারাদিনে যেটুকু টাকা আয় হয় তাতেই কোনমতে চলছে সংসার।

এএনআই সংবাদ সংস্থা সূত্রে খবর, ঠেলাগাড়িতে মুখরোচক খাবার বিক্রি করা ওই শিক্ষকের নাম রামবাবু মারাগনি। জানা গিয়েছে তেলেঙ্গানার খাম্মম শহরে এক বেসরকারি স্কুলে দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষকতা করতেন রামবাবু। তবে দীর্ঘ লকডাউনে স্কুল বন্ধ থাকার কারণে চাকরি যায় তার। এমত অবস্থায় অকূল পাথারে পড়েন ওই শিক্ষক। পরিবারের মুখে ভাত যোগাতে রীতিমতো হিমশিম খেতে হয় তাকে। তবে পেটের টানে অচলায়তন ভাঙতে বিন্দুমাত্র সময় নেননি রামবাবু। স্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে একটি ঠেলাগাড়িতে মাঠে নেমে পড়েন তিনি। স্ত্রীর সহযোগিতায় শুরু হয় ঠেলা গাড়িতে ইডলি, ধোসার মত মুখরোচক সব খাবার বিক্রি। সারাদিনে সেখান থেকে যেটুকু আয় হয় তাতেই দিন গুজরান হয়ে যাচ্ছে ওই শিক্ষকের।

যদিও শুরুতে ভেঙে পড়লেও নিয়তির এহেন পটপরিবর্তন স্বীকার করে নিয়েছেন রামবাবু। সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে তিনি বলেন, ‘কারও ওপর নির্ভরশীল হবেন না কেউ। নিজের পায়ে নিজে দাঁড়ান।’ তবে শিক্ষক রামবাবু ইতিমধ্যেই ভাইরাল হয়ে উঠেছেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। লড়াইকে স্বীকার করে নেওয়া রামবাবুকে স্যালুট জানাচ্ছে নেটিজেনরা। সেখানে রামবাবুকে আশ্বাস দিয়ে অনেকেই বলছেন, ‘কাজের কোনও ছোট-বড় হয় না’। অনেকের আবার মত, ‘কর্মই ধর্ম, আপনি যখন করবেন তখন দ্বিগুণ শক্তিতে উঠবেন।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here