national news

মহানগর ডেস্ক: বরাবরই কট্টর হিন্দুত্ত্ববাদী হিসাবেই পরিচিত উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যানাথ। মুসলিমদের সম্পর্কে একাধিকবার বিতর্কিত মন্তব্য করে শিরোনামে এসেছেন তিনি। মুখে ধর্মনিরপেক্ষতার বুলি আওড়াননি কখনোই। বরং বিশ্বের আঙিনায় ভারতীয় সংস্কৃতি স্বীকৃতি পাওয়ার ক্ষেত্রে ভারতের ‘ধর্মনিরপেক্ষতা’ কেই সবথেকে বড় বাধা হিসাবে দায়ী করলেন যোগী আদিত্যানাথ!

শনিবার অযোধ্যা রিসার্চ সেন্টারের উদ্যোগে তৈরি রামায়ণের গ্লোবাল এনসাইক্লোপিডিয়ার প্রথম সংস্করণের উদ্বোধন করেন যোগী আদিত্যানাথ। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসে তিনি বলেন, “অযোধ্যার বিতর্কিত ভূমিতে ভগবান রামচন্দ্রের মূর্তি রয়েছে কিনা, সেই নিয়ে এখনও সন্দেহ রয়েছে লোকের মনে। এরপরেই তিনি কার্যত হুমকির সুরে বলেন, “যারা নিজেদের স্বার্থসিদ্ধির জন্য দেশের মানুষকে ভুল পথে চালনা করছেন এবং দেশের প্রতি বিশ্বাসঘাতকতা করছেন, তাদের ‘রেয়াত’ করা হবেনা।” যোগীর হুঁশিয়ারি, “যারা টাকার জন্য মিথ্যা অপপ্রচার করছেন, তাদেরও যথাযত ‘শিক্ষা’ দেওয়া হবে।”

এরপরেই উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর ‘মানবিক’ আবেদন, “কোনও সাম্প্রদায়িক বিরোধিতায় জড়িয়ে দেশের অখণ্ডতা নষ্ট করবেন না।” পাশাপাশি এদিন রামায়ণের গ্লোবাল এনসাইক্লোপিডিয়ার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশ্বের অন্যতম শ্রেষ্ঠ মহাকাব্য সম্পর্কে যোগী বলেন, “রামায়ণ শুধুমাত্র জীবনের পাঠই দেয়না, ভারতের সীমানা বৃদ্ধির কথাও বলে। ১৯৪৭ এর আগে পাকিস্তান ভারতেরই অংশ ছিল, এবং রামচন্দ্র তাঁর সময়েই ভারতের সীমানা বৃদ্ধি করে পাকিস্তানকে ভারতের অন্তর্গত করেছিলেন। তাঁর আমলে তিনি তাঁর নিজের ভাইয়ের সন্তানকে পাকিস্তানের রাজাও করেছিলেন।”

তিনি বলেন, “আধুনিক বিজ্ঞান এবং আধ্যাত্মিকতার মেলবন্ধনে তৈরি এই এনসাইক্লোপিডিয়া মানুষকে রামায়ণ সম্পর্কে জানতে আরও উদ্বুদ্ধ করবে।” এই এনসাইক্লোপিডিয়ার নকশা আইআইটি খড়গপুর তৈরি করেছে বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, “প্রথম সংস্করণ ইংরেজিতে প্রকাশিত হলেও খুব শীঘ্রই তামিল ও হিন্দি ভাষাতেও সংস্করণ প্রকাশিত হবে।” তবে যোগীর ভাষা থেকে স্পষ্ট, মসজিদ ভেঙে মন্দির হওয়ার বিরুদ্ধে যারা এখনও সওয়াল করছে, তাদের মোটেই ভালো চোখে দেখছেন না তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here