মহানগর ডেস্ক: ভোটের দামামা বাজতেই সরগরম বঙ্গ রাজনীতি। বঙ্গ দখলের স্বপ্ন নিয়ে গেরুয়া শিবিরের একের পর এক শীর্ষ স্থানীয় নেতামন্ত্রী দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন বাংলার একপ্রান্ত থেকে অন্যপ্রান্তে। আগামী ৭ মার্চ ব্রিগেডে ‘বিশাল’ জনসভাও করতে চলেছেন মোদি। আগামী একুশে বাংলার মসনদ কে দখল করবে, তা নিয়ে চর্চার মধ্যেই বিজেপির তরুণ সাংসদ তেজস্বী সূর্যের দাবি, ‘দুশোর বেশি আসনে জিতে বাংলায় সরকার গঠন করবে বিজেপি। আগামী ৩ মে বাংলার মসনদে বসবেন বিজেপির নতুন মুখ্যমন্ত্রী।’

আগামী ২৭ মার্চ থেকে ২৯ এপ্রিল পর্যন্ত মোট আট দফায় হতে চলেছে বঙ্গভোট। ১৯-এর লোকসভা নির্বাচনের ৪২টি আসনের মধ্যে বিজেপি পেয়েছিল ১৮টি আসন। ১৮টি আসনে জয়ী হওয়ার পর বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেছিলেন, ‘১৯-য়ে হাফ, ২১শে সাফ।’ দিলীপ ঘোষের উদ্ধৃতির রেশ টেনে এদিন তেজস্বী সূর্য বলেন, ‘বাংলায় তৃণমূলকে হটাতে গত পাঁচ বছর ধরে প্রস্তুতি নিচ্ছে বিজেপি। আগামী বিধানসভা নির্বাচনে আমরা দুশোর বেশি আসনে জিতবই।’

মমতার প্রতি আক্রমণ শানিয়ে এদিন তেজস্বী বলেন, ‘গত ৩৪ বছর বাংলায় সন্ত্রাস চালিয়েছে বামেরা। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সিপিআইএমের যোগ্য উত্তরসূরী।’ এরপরেই তিনি প্রতিশ্রুতি দেন, ‘ক্ষমতায় এলে সোনার বাংলা গড়বে বিজেপি। রাজনৈতিক খুনোখুনি, রক্তপাত আর দেখতে হবে না বাংলার মানুষকে।
তেজস্বীর আগেও বিজেপির একাধিক নেতা মন্ত্রী দাবি করেছেন যে বাংলায় ২০০-এর বেশি আসন পেয়ে সরকার গঠন করবে বিজেপি। কিন্তু বিজেপিকে পাল্টা চ্যালেঞ্জ ছুঁড়েছেন তৃণমূলের ভোটকুশলী প্রশান্ত কিশোর। তাঁর দাবি, ‘বিজেপি ১০০-এর বেশি আসন পেলে পেশা ছেড়ে দেব।’ অন্যদিকে একাধিক সমীক্ষার রিপোর্ট বলছে যে তৃতীয় বারের জন্য মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নিতে চলেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এমন অবস্থায় বিজেপির ২০০-এর বেশি আসনে জয়লাভের স্বপ্ন সত্যি হয় কিনা, তা সময়ই বলবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here