punjab

মহানগর ডেস্ক:   করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। এই পরিস্থিতি গুরুতর রোগীদের ভেন্টিলটরে রাখা হচ্ছে। কেন্দ্রের তরফে পিএম কেয়ার্স ফাণ্ডের অর্থবরাদ্দে পঞ্জাবের একটি হাসপাতালে ভেন্টিলেটর দেওয়া হয়েছিল। অভিযোগ উঠেছে, ভেন্টিলেটরগুলো এক থেকে দুই ঘণ্টা কাজ করার পর অচল হয়ে গিয়েছে। পঞ্জাবের এই অভিযোগ যে কেন্দ্রকে নতুন করে অস্বস্তিতে ফেলবে না, তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

কেন্দ্র পঞ্জাবে মোট ৮০টি ভেন্টিলেটর পাঠিয়েছে। তার মধ্যে ফরিদকোটের গুরু গোবিন্দ সিংহ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে ৭১টি ভেন্টিলেটর দেওয়া হয়েছে। ফরিদকোটের  চিকিৎসক রাজ বাহাদুর বলেছেন, এই ভেন্টিলেটরগুলো অত্যন্ত নিম্নমানের। ভেন্টিলেটরগুলো চালু করার কিছুক্ষণের মধ্যেই তা বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। কোনও রোগীর জন্য এই ভেন্টিলেটরগুলোকে ব্যবহার করা যাচ্ছে না বলে তিনি অভিযোগ করেছেন। ঘটনায় বিপদ বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

ফরিদকোটের মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে আগে মোট ৩৯টি ভেন্টিলেটর ছিল। তার মধ্যে ৩২টি চালু রয়েছে। কিন্তু করোনা পরিস্থিতি বেড়ে যাওযার কারণে ৩০০ বেডের করোনা হাসপাতাল করা হয় ফরিদকোটের মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালকে। ফলে এখানে ভেন্টিলেটরের চাহিদাও বেড়ে যেতে থাকে। সেই কারণেই কেন্দ্রের কাছে ভেন্টিলেটর চাওয়া হয়েছিল।

জানা যায়, আম আদমি পার্টির নেতা কুলতার সিং সন্ধওয়ান পড়ে থাকা ভেন্টিলেটরের ছবিগুলো প্রকাশ করেন। টুইটে তিনি লেখেন, পিএম কেয়ার্সের এই ভেন্টিলেটরগুলো অকারণে ফরিদাকোটের জিজিএসএমসি হাসপা্তালে পড়ে রয়েছে। মেশিনগুলো দ্রুত কাজে লাগানোর জন্য তিনি পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রীর কাছে আবেদন করেন। এরপরেই ফরিদাকোটের জিজিএসএমসি হাসপাতালের তরফে জানানো হয়, ভেন্টিলেটরগুলো অচল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here