Home মহানগর 24x7 Exclusive পোষ্যের অস্বাভাবিক আচরণের সূত্র ধরে দুঃসাহসিক ডাকাতির কিনারা ব্যাঁটরা পুলিশের

পোষ্যের অস্বাভাবিক আচরণের সূত্র ধরে দুঃসাহসিক ডাকাতির কিনারা ব্যাঁটরা পুলিশের

0
পোষ্যের অস্বাভাবিক আচরণের সূত্র ধরে দুঃসাহসিক ডাকাতির কিনারা ব্যাঁটরা পুলিশের
Parul

নিজস্ব প্রতিনিধি: তদন্তে নেমে বাড়ির পোষ্যের অস্বাভাবিক আচরণের বিষয় জানতে পেরেই হাওড়ায় ডাকাতির কিনারা করে ফেলল ব্যাঁটরা থানার পুলিশ। গত ২৫ জুন হাওড়া ব্যাঁটরার হৃদয়কৃষ্ণ ব্যানার্জি লেনে এক ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মালিকের বাড়িতে দুঃসাহসিক ডাকাতি হয়। ডাকাতির সময় বাড়ির পোষা কুকুর কোনরকম চিৎকার করেনি বলে জানতে পারে পুলিশ। ঘটনার সময় বাড়ির পোষ্য চুপচাপ ছিল। ‘অচেনা’ লোক দেখেও কুকুরের এমন ‘অস্বাভাবিক’ আচরণ তদন্তকে এগিয়ে নিয়ে যেতে সাহায্য করে পুলিশকে। কুকুরের এহেন আচরণ দেখে পুলিশের বুঝতে অসুবিধা হয় না যারা ডাকাতি করেছে তারা ওই বাড়ির কোনও পরিচিত ব্যক্তি।

সেই সূত্র ধরেই তদন্তে নামে পুলিশ। গ্রেফতার করা হয় ধর্মেন্দ্র দাস (৩৪) এবং শুভজিৎ সামন্ত (২৬)কে। তারা দুজনেই কাজের জন্য একাধিকবার এই বাড়িতে এসেছে বলে পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে, যাঁদের বাড়ি ডাকাতি হয়েছে সেই গৌতম পাল এর একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টার আছে। ধর্মেন্দ্র ছিলেন অ্যাম্বুলেন্স চালক। ধৃত অপর একজন শুভজিৎ সামন্ত ওই ডায়াগনস্টিক ল্যাবে সিটি স্ক্যান করতেন। কাজের সূত্রে অনেকবারই গৌতম পালের বাড়ি গিয়েছেন অভিযুক্তরা। সেই সূত্রে বাড়ির কুকুরটি চিনত তাদের দু’জনকেই।

পুলিশ আরও জানিয়েছে, ধর্মেন্দ্রর বাড়ি ওড়িশায়। সে এই ডাকাতির জন্য ওড়িশা থেকে দুই আত্মীয়কে এখানে নিয়ে এসেছিল। বর্তমানে তারা এখন পলাতক। তাদের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ। পুলিশের দাবি সিসিটিভি অভিযুক্তদের গতিবিধি জানতে সাহায্য করেছে কিন্তু তদন্ত করেই ধরা হয়েছে অভিযুক্তদেরকে। এই তদন্তে ডাকাতির সময় কুকুরের এই আচরণের ঘটনা জানতে পারে। এই ঘটনা তদন্তের কাজ অনেকটাই সাহায্য করেছে বলে পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here