udhhab thakrey and narendra modi

মহানগর ডেস্ক:  করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে দেশে। করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে নাজেহাল দেশ। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আড়াই লক্ষের বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এই পরিস্থিতির মধ্যেও বাংলায় নির্বাচনী প্রচার করছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সেই নিয়ে তির্যক মন্তব্য করেন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে। একাধিক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী এর পাল্টা জবাব দিয়েছেন। বাদ যাননি অমিত শাহ, তিনি বলেন, মহারাষ্ট্রে কি নির্বাচন হচ্ছে, সেখানে এতজন কী করে আক্রান্ত হচ্ছেন

মহারাষ্ট্রে করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারন করেছে। দেখা দিয়েছে ওষুধ, অক্সিজেনের ঘাটতি। এই বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলার জন্য ফোন করেছিলেন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে। কিন্তু বাংলার নির্বাচন নিয়ে প্রধানমন্ত্রী ব্যস্ত থাকায় উদ্ধব ঠাকরের সঙ্গে কথা বলতে পারেননি। এখান থেকেই বিতর্কের সূত্রপাত। উদ্ধব ঠাকরে এই কথা প্রকাশ্যে বলার পরেই তাঁকে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা আক্রমণ করতে থাকেন।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঘটনা প্রকাশ্যের পরেই দ্রুত ড্যামেজ কন্ট্রোলে নামেন। টুইটারে হর্ষবর্ধন বলেন, মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরের সঙ্গে কথা হয়েছে। করোনা চিকিৎসায় অক্সিজেন ও অন্যান্য যা কিছু প্রয়োজন হবে, তাই পাঠানোর আশ্বাস দেওয়া হবে। হর্ষবর্ধনের টুইটের পরেই রেলমন্ত্রী পীযুশ গোয়েল টুইট করেন। সেই টুইটে উদ্ধব ঠাকরেকে এক হাত নেন। গোয়েল অভিযোগ করেন, মহারাষ্ট্র একটা অযোগ্য ও দুর্নীতিগ্রস্থ সরকার। সেই সরকার করোনা নিয়ে ক্রমাগত রাজনীতি করার চেষ্টা করছেন। দেশে ১১০ শতাংশ অক্সিজেন তৈরি হচ্ছে। কটাক্ষ করেন অমিত শাহ। তিনি বলেন, মহারাষ্ট্রে কি নির্বাচন চলছে, যে সব রাজ্যে নির্বাচন চলছে, সেখানে চার হাজার করে দিনে আক্রান্ত হচ্ছে। মহারাষ্ট্রে এত বেশি কেন করোনায় আক্রান্ত হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, প্রধানমন্ত্রী তামিলনাড়ু, অসম, বাংলার নির্বাচন নিয়ে ব্যস্ত রয়েছেন। একাধিক জনসভা করছেন। শুধু প্রধানমন্ত্রী নয়, একাধিক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জনসভা করেছেন। কিন্তু সেই জনসভাগুলো লক্ষ্য করলে দেখা যায়, সেখানে অংশগ্রহণ করা বেশিরভাগ মানুষ করোনা বিধি মেনে চলেননি।                                                     

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here