মেয়েকে মন্ত্রী করার প্রস্তাব মিলেছিল! মহারাষ্ট্র বাগে আনতে শরদকে ‘টোপ’ দিয়েছিলেন মোদী

0
national bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: বিগত একমাসেরও বেশি সময় ধরে মহারাষ্ট্রে রাজনীতি মহা নাটক চলেছে। নিজেদের মধ্যে দ্বন্দ্বের জেরে বিজেপির সঙ্গে ৩০ বছরের সখ্যতা নষ্ট করে বিরোধী কংগ্রেস-এনসিপির সঙ্গে সরকার গড়েছে শিবসেনা। তবে সেই কাজ যে সহজ হয়নি তা সকলেই জানেন। সরকার গড়ার মুহূর্ত আগে এনসিপি সুপ্রিমো শরদ পাওয়ারের ভাইপো অজিত পাওয়ারের ‘পাল্টি’তে মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নেন দেবেন্দ্র ফড়ণবীশ। এই ঘটনায় তাক লেগে যায় সকলের। এ ব্যাপারে কিছুই জানেন না দাবি করা শরদ পাওয়ারের দিকেও আঙুল ওঠে, কারণ দিন কয়েক আগেই তাঁর সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বৈঠক হয়েছিল। মূলত কৃষি সমস্যা নিয়ে বৈঠকের কথা থাকলেও ঠিক কী বিষয় আলোচনা হয়েছিল সেদিন তার বর্ণনা দিলেন তিনি। তা বেশ চমকপ্রদই।

একসঙ্গে কাজ করার জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর থেকে প্রস্তাব পেয়েছিলেন তিনি! এমনই দাবি করেছেন এনসিপি সুপ্রিমো শরদ পাওয়ার। এক মারাঠি চ্যানেলকে সাক্ষাৎকার দিয়ে তিনি মন্তব্য করেন, মারাঠাভূমের এই টালমাটাল পরিস্থিতিতে তাঁর সঙ্গে অর্থাৎ বিজেপির সঙ্গে হাত মেলানোর প্রস্তাব দিয়েছিলেন খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এমনকি তাঁর মেয়েকে মন্ত্রিসভার সদস্য করারও কথা দেন মোদী। কিন্তু সেই প্রস্তাব তিনি ফিরিয়ে দিয়েছেন বলেই জানান শরদ। তাঁর কথায়, নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক ভাল, কিন্তু জোট বেঁধে কাজ করা যে সম্ভব নয় তা তখনই স্পষ্ট করে দিয়েছিলেন তিনি। এই প্রেক্ষিতে আরও শোনা গিয়েছিল যে, তাঁকে নাকি রাষ্ট্রপতি করার প্রস্তাবও দেওয়া হয়েছিল বিজেপির তরফে। কিন্তু সেই জল্পনায় জল ঢেলে দিয়েছেন তিনি।

উদ্ধব ঠাকরে মুখ্যমন্ত্রী নির্বাচিত হওয়ার ঠিক পরের দিন ভোরেই পাশা পাল্টে দেয় বিজেপি। অজিত পাওয়ার সঙ্গে হাত মিলিয়ে মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নেন দেবেন্দ্র ফড়ণবীশ। অজিত দাবি করেন তাঁদের সমর্থনে বাকি বিধায়করা রয়েছেন, কিন্তু এনসিপি সুপ্রিমো শরদ পাওয়ারের বক্তব্য ছিল, তিনি এই ব্যাপারে কিছুই জানেন না। অজিত পাওয়ারকে দলে ফিরে আসতেও বলা হয়। তবে অজিত অবশ্য বরাবরই দাবি করেছিলেন তিনি এনসিপিতেই রয়েছেন এবং থাকবেন। পরবর্তী সময় সুপ্রিম কোর্ট মহারাষ্ট্র নিয়ে রায় দিতেই খেলা বদলে বিজেপি জোট ছেড়ে বেরিয়ে আসেন পাওয়ার। ফড়ণবীশও বেগতিক দেখে তড়িঘড়ি মুখ্যমন্ত্রী পদ থেকে ইস্তফা দেন। শেষে সমস্ত জট কেটে গিয়ে মারাঠাভূমে সরকার গড়েছে শিবসেনা-কংগ্রেস-এনসিপি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here