kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, দুর্গাপুর:  প্রায় ৭২ ঘণ্টার উৎকণ্ঠার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে জৈন পরিবারে ফিরল স্বস্তি। সন্ধান মিলল রহস্যজনক ভাবে নিরুদ্দেশ হয়ে যাওয়া দুর্গাপুরের বাসিন্দা তথা একটি বেসরকারি কারখানার জেনারেল ম্যানেজার রাজেশ জৈনের। বিহারের ঔরঙ্গাবাদ থেকে আজ ওই ব্যক্তিকে উদ্ধার করে পুলিশ। গোপন সুত্রে খবর পেয়ে দুর্গাপুর থেকে পুলিশের একটি তদন্তকারী দল ঔরঙ্গাবাদে পৌঁছয়। সেখানে একটি জায়গায় রাজেশবাবুকে গাড়িতে ওঠার সময় তাঁকে নিজেদের হেফাজতে নেয় ওই তদন্তকারী দলটি। ওই জায়গায় রাজেশবাবু কীভাবে পৌঁছলেন, এই ঘটনাটি কি আদৌ অপহরণ? নাকি এর পেছনে লুকিয়ে রয়েছে অন্য কোনও রহস্য তা জানতে রাজেশবাবুকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ।

প্রসঙ্গত, গত ৬ জুলাই সিটি সেন্টার থেকে রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ হয়ে যান রাজেশ জৈন। দুর্গাপুরের ফরিদপুর ফাঁড়ির অন্তর্গত ৫৪ফুট এলাকায় ‘ন্যাচারাল হাইটস’ নামে বহুতল আবাসনে পরিবার নিয়ে বসবাস করেন রাজেশ জৈন। এছাড়াও রাজেশবাবু বাঁকুড়ার বিষ্ণুপুরে একটি বেসরকারি ফেরো অ্যালয় কারখানার জেনারেল ম্যানেজার। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, গতকাল অর্থাৎ রবিবার দুপুর ১২টার পর তিনি একটি মলের স্যালোঁতে চুল কাটাতে যাচ্ছেন বলে বাড়ি থেকে বের হন। এরপর বেশ কিছুটা সময় পেরিয়ে গেলেও তিনি ঘরে না ফেরায় তাঁর স্ত্রী তাঁকে মোবাইলে বার বার ফোন করলেও তিনি ফোন তোলেন না।

এরপর সন্ধ্যের দিকে রাজেশবাবুর মোবাইল নম্বর থেকে তাঁর স্ত্রীর কাছে একটি ফোন আসে। ফোনের অপর প্রান্ত থেকে বাংলা ভাষায় কিছু কথা রাজেশবাবুর স্ত্রীকে বলা হয়। কিন্তু রাজেশবাবুর স্ত্রী বাংলা ভাষা বুঝতে পারেন না বলে ওই ব্যক্তি রাজেশবাবুর জন্য কোনও মুক্তিপণ চেয়েছে কিনা, তা নিশ্চিত হয়ে বলতে পারেননি তিনি। তবে ফোনের অপর প্রান্তের ওই ব্যক্তি একবার অপহরণ কথাটা উচ্চারণ করেছিল, সেটি তিনি বুঝতে পারেন। এরপর দিশাহারা রাজেশবাবুর স্ত্রী তাঁর আত্মীয়দের বিষয়টি জানালে তারাই পুলিশে খবর দেন।

আজ তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবেl  দুর্গাপুর থানার পক্ষ থেকে রাজেশবাবুকে মহকুমা আদালতে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবেl  গতকাল দুর্গাপুর পুলিশের হেফাজতে তঝাকা অবস্থায় জানান তিনি ভীষন ক্লান্তl রাত দুটো নাগাদ রাজেশবাবুকে ঝাড়খণ্ড হয়ে দুর্গাপুর থানায় নিয়ে আসা হয়l

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here