kolkata bengali news

জেলা ডেস্ক: লোকসভা ভোটের দিন যত এগিয়ে আসছে ততই রাজনৈতিক তর্ক ও বিতর্ক বেড়েই চলেছে রাজ্যের প্রায় প্রতিটি জেলাতেই। এই মুহুর্তে রাজ্যে প্রধান দুই যুযুধান শিবির শাসক তৃণমূল কংগ্রেস ও বিরোধী বিজেপির। জেলায় জেকায় এই দলের মধ্যে কাজিয়েও তাই বেশি। সেই সব কাজিয়ার একটা বড় অংশই আবার হচ্ছে দেওয়াল লিখনকে ঘিরে। সিংহভাগ ক্ষেত্রে অভিযোগ উঠছে বিজেপি তাদের প্রচারের জন্য যে দেওয়াল চিহ্নিত করে রেখে দিয়েছে তা রাতের অন্ধকারে বেদখল হয়ে চলে যাচ্ছে শাসক তৃণমূলের হাতে। নয়ত বিজেপির দেওয়াল লিখনের ওপরেই কেউ বা কারা নোংরা মাখিয়ে দেওয়ার পাশাপাশি সাদা চুন দিয়ে মুছে দিচ্ছে। কোথাও আবার অভিযোগ উঠছে শাসকের অদৃশ্য অঙ্গুলীহেলনে প্রশাসনের লোকেরা গিয়ে বিজেপির দেওয়াল লিখন মুছে দিচ্ছে। শনিবার এই ধরনেরই অভিযোগ উঠল হাওড়া, বীরভূম আর নদিয়া জেলা থেকে।

হাওড়া সদর লোকসভা কেন্দ্রে ভোট প্রচারে ঘিরে বিতর্ক শুরু হলো ২৯ ও ৩৯ নম্বার ওয়ার্ডে। তৃণমূল কংগ্রেসের অভিযোগ, তাদের দেওয়াল বিজেপির লোকেরা দখল করেছে। বিজেপির পক্ষ থেকে সেই অভিযোগকে মিথ্যে বলে পাল্টা দাবি করে অভিযোগ করা হয়। বিজেপির বক্তব্য, ওই দেয়ালটিতে তারা অনেক বছর ধরে লিখছেন। এটা তাদের দেওয়াল, কিন্তু তৃণমূল থেকে এই দেওয়াল মুছে দেওয়া হয়েছে। তারা ওই দেওয়ালে নিজেদের দলের প্রচার করেছে। শাসকদল হওয়ার সুবাদে তৃণমূল বিজেপির দেওয়াল লিখন মুছে বিজেপিকে নানাভাবে প্রচার করতে বিঘ্ন ঘটাচ্ছে। বাড়ির মালিকদের বারণ করছে বিজেপিকে দেওয়াল লেখার জন্য অনুমতি না দিতে।
বিজেপির তরফে করা এই সব অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে ২৯ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূলের সভাপতি জানান যে তারা দেওয়াল নিয়ে রাজনীতি করেন না। তাদের কাছে বাড়ির মালিকের অনুমতিপত্র আছে। প্রয়োজনে তারা দেখাতে পারেন। একই ছবি উঠে এসেছে ৩৯ নম্বর ওয়ার্ডেও। সেখানেও একটি দেওয়াল বিজেপির পক্ষ থেকে দলের প্রতীক এঁকে রেখে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু সেই দেওয়ালেও কেউ ‘চৌকিদার চোর হ্যায়’ লিখে গেছে।

 

অন্যদিকে এদিনই আবার বীরভূম জেলার সদর মহকুমার মহম্মদবাজার ব্লকের পুরাতন গ্রাম পঞ্চায়েতের বসন্তপুর গ্রামে বিজেপির দেয়াল লিখনে গোবর লেপে দেওয়ার অভিযোগ উঠল তৃণমূলের বিরুদ্ধে। এই ঘটনায় মহম্মদবাজার থানায় বিজেপির পক্ষ থেকে একটি লিখিত অভিযোগও জমা দেওয়া হয়। বিজেপির দাবি এই ধরনের কাজ একমাত্র তৃণমূলই করতে পারে। রাতের অন্ধকারে এলাকার কিছু তৃণমূলের কর্মীরা এই ধরনের কাজ করে বেড়াচ্ছে। যদিও এই ধরনের অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছেন তৃণমূল কংগ্রেসের ব্লক সভাপতি তাপস সিংহ। তিনি বলেন, ‘তৃণমূলের কর্মীরা এ ধরনের কাজ করবে না, সেই মতই তাদের নির্দেশ দেওয়া আছে। বিজেপি যেহেতু এখনও পর্যন্ত নিজেদের কোন জায়গা করে উঠতে পারেনি, তাই তারা তৃণমূলের নামে বদনাম রটানোর জন্য নিজেরাই এই ধরনের কাজ করে এখন তৃণমূলের ঘাড়ে দোষ চাপাচ্ছে।’

নদিয়া জেলায় এদিনই আবার সরকারী দেওয়ালে বিজেপি প্রার্থীর দেওয়াল লিখন মুছে দিল স্থানীয় জেলা প্রশাসন। নদিয়ার হরিনঘাটায় জেলা পরিষদের দোকান ঘরের দেওয়ালে বনগাঁ লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী শান্তনু ঠাকুরের সমর্থনে লেখা দেওয়াল লিখন মুছে দেওয়া হয় প্রশাসনের তরফে। প্রসঙ্গত নির্বাচনী বিধি অনুযায়ী কোনও সরকারি জায়গায় নির্বাচনী প্রচারের জন্য যে কোনও রাজনৈতিক দলের দেওয়াল লিখন, ব্যানার, ফেস্টুন এর ব্যবহার নিষিদ্ধ। সেই নিয়ম অনুযায়ীই শনিবার হরিনঘাটায় বিজেপির লেখা দেওয়াল সাদা রং করে দেয় প্রশাসন। তবে এই ঘটনায় বিজেপির তরফে অভিযোগ তোলা হয়েছে যে শাসকের ইশারাতেই ওই ঘটনা ঘটানো হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here