নিজস্ব প্রতিবেদক, বোলপুর: বিয়ে করতে এসেও পণ না পাওয়ায় বিয়ে না করে ফিরে গিয়েছিল পাত্র, আর সেই লগ্নভ্রষ্টা কন্যার খবর জানতে পেরে অন্য ছেলের সঙ্গে বিয়ের ব্যবস্থা করলেন এলাকারই তৃণমূল কাউন্সিলর। শুধু তাই নয়, নিজের গাঁটের কড়ি খরচ করে ওই বিবাহ সুসম্পন্ন করার ব্যবস্থাও করেন তিনি। তার উদ্যোগকে কুর্নিশ জানিয়েচ্ছে সকলে। ঘটনাস্থল বীরভূমের বোলপুর শহরের পাশেই শান্তিনিকেতনের রতনপল্লী এলাকা। সেখানকারই বাসিন্দা দিলীপ ঘোষ, পেশায় তিনি সাইকেল মিস্ত্রি। অভাব-অনটনের সংসারে তার একমাত্র কন্যা মামনি। বীরভূমের পারুই এলাকার এক পাত্রের সঙ্গে মামনির বিয়ে ঠিক হয়। বিয়ের দিন ছিল গত ১৬ই আগস্ট।

বিয়ের দিন চলে এলেও পাত্রপক্ষের দাবিমতো বরপন জোগাড় করে উঠতে পারেননি দিলীপবাবু। বিয়ের দিন পাত্র বিয়ে করতে এলেও তাদের দাবি মত জিনিসপত্র না হওয়ায় ফিরে যায় তারা। অসহায় কন্যাদায়গ্রস্ত পিতার আবেদন কোন ভাবেই পাত্র বা পাত্রপক্ষের কাউকে নরম করতে পারেনি। এর পরই দীলিপবাবু বোলপুরের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সুকান্ত হাজরার কাছে ছুটে যান এবং সমস্ত ঘটনা তাকে খুলে বলেন। সুকান্তবাবু পুরো ঘটনা শুনে স্থানীয় বোলপুর তৃণমূল দলীয় কার্যালয় কাজ করা বিষ্ণু দাস বলে একটি ছেলেকে বিয়ের প্রস্তাব দেন। কাউন্সিলারের প্রস্তাবে রাজি হয়ে যায় বিষ্ণু। এরপর বৃহস্পতিবার রাতেই সম্পূর্ণ নিজের খরচে বিষ্ণু ও মামনির চার হাত এক করে দেন সুকান্তবাবু। মেয়েকে লগ্নভ্রষ্টা হবার হাত থেকে রক্ষা করায় সুকান্তবাবুর প্রতি কৃতজ্ঞ থেকে যান দিলীপবাবু। অন্যদিকে মামনিও বিষ্ণুকে জীবনসঙ্গী হিসাবে পেয়ে খুশি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here