তৃণমূলের দখলে পোলেরহাটের পঞ্চায়েত বোর্ড, আন্দোলনের ডাক জমি কমিটির

0

নিজস্ব প্রতিবেদক, ভাঙড়: টানটান উত্তেজনা, নাটকীয় মোড়ের মধ্য দিয়ে ভাঙড়ের পোলেরহাট ২ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতয়ের বোর্ড দখল করল তৃণমূল। পাল্টা এলাকায় অশান্তির হুশিয়ারি দিলেন জমি কমিটির মুখপাত্র অলীক চক্রবর্তী।বুধবার হাইকোর্টের নির্দেশ মতন কড়া পুলিশি পাহারায় পোলেরহাট ২ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠন প্রক্রিয়া শুরু হয়। গণ্ডগোলের আশঙ্কায় এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করা হয়। মোতায়েন করা প্রায় ৫০০ পুলিশ বাহিনী। পুলিশি নিরাপত্তায় তৃণমূল কংগ্রেসের ১১ জন পঞ্চায়েত সদস্য এদিন পঞ্চায়েতে শপথ নিতে আসেন। এর পাশাপাশি জমি কমিটি সমর্থিত নির্দল সদস্যদের পুলিশ নিরাপত্তা দিয়ে পঞ্চায়েত অফিসে নিয়ে আসেন।

এই পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠন ঘিরে রাত থেকে টানাপোড়েন চলে। পুলিশের পক্ষ থেকে একটি সমঝোতার রাস্তা তৈরি করার জন্য জমি কমিটির নেতৃত্ব এবং আরাবুল বাহিনী এই দুই পক্ষকে নিয়ে দফায় দফায় বৈঠক করেন। জমি কমিটির পক্ষ থেকে বোর্ডে আরাবুল পুত্র হাকিমুলের থাকা নিয়ে আপত্তি তোলা হয়। এদিকে জমি রক্ষা কমিটির প্রস্তাব অনুযায়ী, তৃণমূলের তৃপ্তি বিশ্বাসকে পঞ্চায়েত প্রধান হিসাবে প্রস্তাব দেওয়া হয়। যা তৃণমূলের শীর্ষ নেতৃত্ব থেকে স্থির হয়, জমি কমিটির প্রস্তাব অনুযায়ী তৃপ্তি বিশ্বাস প্রধান এবং আরাবুল পুত্র হাকিমুল ইসলাম উপ প্রধান হিসাবে শপথ নেবে। কিন্তু তৃপ্তি বিশ্বাস পঞ্চায়েত প্রধান হতে রাজি হলেও শেষ মুহূর্তে বেঁকে বসেন। জমি কমিটির অভিযোগ, তৃপ্তি বিশ্বাসের ওপর আরাবুল বাহিনী চাপ তৈরি করেছে, তাই তিনি প্রধান হতে চাইছেন না। এমনকি তার স্বামীকে অপহরণ করে রেখেছে আরাবুল বাহিনী। এরপর কোনও উপায় না পেয়ে তৃণমূলের বিপক্ষে পাল্টা প্যানেল দেয় জমি কমিটির সদস্যরা। যদিও ভোটাভুটিতে প্রধান হলেন আরাবুল অনুগামী সবিতা সর্দার এবং উপ প্রধান হন আরাবুল পুত্র হাকিমুল ইসলাম।

বোর্ড গঠনের পরে ভাঙড়ে নতুন করে অশান্তির হুশিয়ারি দিলেন জমি কমিটির মুখপাত্র অলীক চক্রবর্তী। এদিন তিনি বলেন, পুলিশি ঘেরা টোপে এদিন যেভাবে হাকিমুল সহ তাঁদের প্রধান হয়েছে তা অনৈতিক। আমারা খুনি হাকিমুল-আরাবুলকে মানছি না মানব না। এই নিয়ে ভাঙড়ে নতুন আন্দোলন শুরু হবে। এর পাশাপাশি ভাঙড়ে আবার নতুন করে অশান্তি শুরু হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here