kolkata bengali news

নিজস্ব প্রতিবেদক, বহরমপুর: অধীরগড়ে শাসকের থাবা বেশ ভালই আঁচড় দিল বিরোধী শিবিরে। তৃণমূলকে ভোট না দেওয়ার অপরাধে মা আর মেয়ের মুখ পুড়িয়ে দেওয়া হল অ্যাসিডে। ঘটনার জেরে জোর চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে মুর্শিদাবাদ জেলার সদর মহকুমার ইসলামপুর থানার তেনাপাড়া এলাকায়। পাশাপাশি জেলায় ভোটের দিন পুলিশের ভূমিকা নিয়ে সরব হয়েছেন শাসক দলের প্রার্থী। সব মিলিয়ে বেশ ভালই শোরগোল পড়েছে অধীর রঞ্জন চৌধুরীর খাসতালুকে।

জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার ভোটের দিন তৃণমূলকে ভোট দিতে অস্বীকার করায় মা আর মেয়ের মুখে অ্যাসিড ঢেলে দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে ইসলামপুর থানার কেশবপুর তেনাপাড়া এলাকায়। আক্রান্ত মহিলার নাম আনসুরা বিবি(৫০)। মঙ্গলবার ভোটের দিন তিনি মোহনপুর এমএসকে স্কুলে ভোট দেওয়ার জন্য আসেন, তখন জনা কয়েক তৃণমূল কংগ্রেস কর্মী জোড়াফুলে ভোট দিতে বলেন। কিন্তু আনসুরা বিবি ভোট দিতে অস্বীকার করে বলেন, ভোট কাকে দেব সেটা আমার ব্যাপার। আর এতেই ক্ষুব্ধ হয়ে তারা আনসুরা বিবিকে মারতে, মারতে বাড়িতে নিয়ে আসে বলে অভিযোগ। মহিলার ছেলে রুপসান সেখ জানান তার মাকে বেধড়ক মারধর করার পর মুখে অ্যাসিড ঢেলে দেয়। তাকে বাঁচাতে আসলে আক্রান্ত মহিলার মেয়ে মমতাজ বেগমের মুখেও অ্যাসিড ঢেলে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ।

দুজনকেই চিকিৎসার জন্য প্রথমে ইসলামপুর গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে আনসুরা বিবির অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে মুর্শিদাবাদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়। বর্তমানে আনসুরা বিবি সেখানে আশঙ্কাজনক অবস্থায় চিকিৎসাধীন। ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে আক্রান্তের ছেলে রুপসান সেখ আটজনের নামে ইসলামপুর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

এরই পাশাপাশি এদিন রাজ্য পুলিশের বিরুদ্ধে অসহযোগীতার অভিযোগ তুলেছেন মুর্শিদাবাদ কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী আবু তাহের খান। তিনি অভিযোগ তুলে বলেছেন, নির্বাচনের দিন কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানদের সঙ্গে বেশি মাত্রায় সক্রিয় ছিল রাজ্য পুলিশও। কোথাও ভোটারদের বাড়ি থেকে নিয়ে যাওয়া, কোথাও বা তৃনমুল কংগ্রেস কর্মীদের বাড়ি ভাঙচুর, এমনকি বিরোধীদের এজেন্টদেরও বাড়ি থেকে বুথে নিয়ে এসেছে। আবু তাহের খান বলেন রাজ্য পুলিশ কেন্দ্রীয় বাহিনীকে পেয়ে অতি সক্রিয় হয়ে উঠেছিল। বেশ কিছু ক্ষেত্রে নিয়মভঙ্গের ঘটনাও ঘটেছে।

তার বক্তব্য, ‘পুলিশ ও প্রশাসনের উপর আমাদের আস্থা রয়েছে। তবুও বিভিন্ন জায়গায় তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীদের মারধর, বাড়ি ভাঙচুর করেছে।’ রাজ্য পুলিশের নিরপেক্ষতা নিয়েও এদিন প্রশ্ন তোলেন তিনি। ডোমকলের গোকুলচর এলাকায় দলীয় কর্মীদের উপর লাঠিচার্জ করেছে পুলিশ, এমনকি বাড়ি গিয়ে আসবাবপত্র, মোটরবাইকও ভাঙচুর চালায় রাজ্য পুলিশ। এমনটাই অভিযোগ স্থানীয় তৃণমূল পঞ্চায়েত সদস্যার। রাজ্য পুলিশ ও কেন্দ্রীয় বাহিনী কোথাও কংগ্রেসকে জেতাতে কোথাও বা বিজেপির ভোট বৃদ্ধি করার জন্যই এমনটা করেছে বলে অভিযোগ তার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here