বাসন্তীতে মূল আর যুব তৃণমূলের লড়াইয়ে গুলিবিদ্ধ হয়ে মৃত্যু যুবকের

0
bengali news

নিজস্ব প্রতিনিধি, বাসন্তী: আবার তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে বাসন্তীতে গুলিবিদ্ধ হয়ে মৃত্যু হল এক তৃণমূল কর্মীর। তাঁর নাম সাহবুদ্দিন সরদার। মঙ্গলবার সকালে লেবুখালি গ্রামের ঘটনা। গুলিতে জখম সাহবুদ্দিনকে বাসন্তী হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে সেখানেই তাঁর মৃত্যু হয়। এই মৃত্যুর পর এরপর থেকে থমথমে গোটা এলাকা। বিশাল পুলিশবাহিনী মোতায়েন পরিস্থিতি মোকাবিলায়।

জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার সকালে বাড়ি থেকে বাজারে যাওয়ার সময় বেশ কয়েকজন দুষ্কৃতী সাহাবুদ্দিনকে লক্ষ্য করে বোমা ও গুলি ছোড়ে। গুলিতে জখম সাহবুদ্দিনকে বাসন্তী হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে সেখানেই তাঁর মৃত্যু হয়। অভিযোগ, যুব তৃণমূলের হার্মাদ বাহিনীর আক্রমণে মৃত্যু হয় মূল তৃণমূল কর্মী সাহাবুদ্দিনের। এদিকে তিন ধরে বাসন্তীর ফুলমালঞ্চ অঞ্চলের নেবুখালি, নির্দশখালি-সহ বিভিন্ন এলাকায় চলছে মূল তৃণমূলের সঙ্গে যুব তৃণমূলের দফায় দফায় সংঘর্ষ। প্রকাশ্যে চলছে বোমা-গুলির লড়াই। আর এই গোষ্ঠী সংঘর্ষের জেরে সাহাবুদ্দিনের মৃত্যু হল বলে অভিযোগ তাঁর বাড়ির লোকের।

এদিন সকাল থেকে মূল তৃণমূলের কর্মীরা সাহাবুদ্দিনের দেহ নিয়ে ক্যানিং-বাসন্তী সড়ক অবরোধ করেন। দেহ উদ্ধার করতে এলে পুলিশকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখাতে থাকে। এই ঘটনায় এলাকা এখনও থমথমে রয়েছে। যদিও গোষ্ঠীদ্বন্দের অভিযোগ অস্বীকার করেছে এলাকার তৃণমূল নেতৃত্ব। তাঁদের দাবি, পারিবারিক বিবাদের জেরে গুলিবিদ্ধ হয়ে মৃত্যু হয়েছে ওই যুবকের। এর সঙ্গে রাজনৈতিক কোনও যোগ নেই। তবে সে কথা মানতে নারাজ অপরপক্ষ।

তৃণমূলের বাসন্তী ব্লকের যুব সভাপতি আমানুল্লা লস্কর জানিয়েছেন, এটা সম্পূর্ণ পারিবারিক বিবাদ। এর সঙ্গে কোনও রাজনৈতিক সম্পর্ক নেই। যদিও, তাঁর এই দাবি মানতে নারাজ বাসন্তীর প্রাক্তন ব্লক সভাপতি মন্টু কাজি। তাঁর দাবি, এলাকা দখলের চেষ্টা চালাচ্ছিল যুব তৃণমূলের নেতারা। তাঁর জেরে বারবার এলাকায় অশান্তি হচ্ছিল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here