kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: নিজের ঘর ছেড়ে পরের ঘরে গিয়ে মন বসেনি শোভনের। দেওয়ালে গেরুয়া রং লেপা নতুন ঘরে নিশ্চুপে বসে রইলেও মন পড়ে ছিল সেই কালীঘাটের টালির বাড়িতে। অগত্যা চোখের আড়ালে চলে যাওয়া দিদিকে দেখতে সব বাঁধন ছিড়ে একছুটে চলে এসেছিলেন ভাইফোঁটায়। সব ভুল ক্ষমা করে ছোটভাই কাননকে আপন করে নিতেও কোনও কসুর করেননি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ভাইটি লেকে হাঁটতে যেতে পারছে না বলে ফিরিয়ে দিয়েছিলেন তাঁর নিরাপত্তাও। অনুমানটা তখনই প্রমাণের রাস্তায় হাঁটতে শুরু করেছিল, রাগ, দুঃখ, অভিমান ভুলে এবার তৃণমূলে ফিরছেন শোভন। এবার একরকম পাকা কথা হয়ে গেল আগামী বৃহস্পতিবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত ধরে আনুষ্ঠানিকভাবে তৃণমূলে যোগ দিচ্ছেন তিনি।

তৃণমূল ছেড়ে শোভন চট্টোপাধ্যায় বিজেপিতে যোগ দিলেও, ভাতৃত্বের টানেই হয়ত অন্য নেতাদের মতো শোভনকে দল থেকে বহিষ্কার করেননি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে শাস্তি স্বরূপ তার নিরাপত্তাটুকুই কেড়েছিলেন তিনি। ফলস্বরূপ বিজেপিতে যোগ দিলেও খাতায় কলমে আজও তিনি তৃণমূলেরই বিধায়ক। এদিকে একুশের রণকৌশল সাজাতে আগামী ৭ নভেম্বর রাজ্যের সমস্ত বিধায়কদের বৈঠকে ডেকেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু সবার মাঝে নজরটা ছিল শোভনের দিকে। এবার জানা গেল ওই বৈঠকে আশার জন্য দলের তরফ থেকে আমন্ত্রণ পাঠানো হয়েছে শোভনকে। শোভন যে তৃণমূলের ডাকে সাড়া দিয়ে বৈঠকে আসবেন সে সম্পর্কে একেবারেই নিশ্চিত তৃণমূলের শীর্ষ মহল। ওদিকে শোভনের ব্যক্তিগত মহল সূত্রেও জানা যাচ্ছে। বহুদিনের বনবাস কাটিয়ে ফের নিজের ঘরে স্বমহিমায় ফিরে আসতে আগ্রহী মমতার প্রিয় কাননও। ফলে দুয়ে দুয়ে চার হতে আর কোনও সমস্যা নেই। আগামী ৭ তারিখ লক্ষ্মীবারেই ঘরে ফিরছে তৃণমূলের ঘরের ছেলে শোভন।

তবে দলে ফিরলে তাঁকে নতুন করে কী পদ দেওয়া হবে সে বিষয়ে আলোচনা চলছে। আগের মতোই বড় কোনও পদ তাঁকে দেওয়া হবে বলেই চিন্তাভাবনা শুরু করেছে তৃণমূল। কিন্তু শুধু শোভন নন, পুরস্কার রয়েছে তার বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্যও। আগে তৃণমূলের অধ্যাপক সংগঠনের গুরুত্বপূর্ণ পদে ছিলেন বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। অনুমান করা হচ্ছে তার সেই পদও ফিরিয়ে দেবে তৃণমূল। সবমিলিয়ে আগামী ৭ নভেম্বর, দীর্ঘ শোভন অধ্যায়ের সমাপতন করতে চলছে তৃণমূল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here