ডাক এসেছে ঘর থেকে, বিজেপিতে ছুটি কাটিয়ে ফের কি তৃণমূলে শোভন!

0
2454

মহানগর ওয়েবডেস্ক: ঘরের ছেলে অভিমান করে ঘর ছেড়েছিল। তবে ঘর আর পরের মধ্যে পার্থক্যটা হাড়ে হাড়ে টের পেয়েছিল অল্পদিনেই, তাই হয়ত এবার তোড়জোড় শুরু হল ঘরে ফেরার। কথা হচ্ছে, শোভনকে নিয়ে। মাফ করবেন, বৈশাখীও আছেন। বাংলা রাজনীতিতে বন্ধুত্বের নজির সৃষ্টি করা শোভন বৈশাখীতো আর আলাদা হতে পারেন না। যাই হোক, ১৪ আগস্ট বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর মাত্র ১ মাসেই বিজেপি প্রীতি কেটে গিয়েছে এই জুটির। একাধিকবার সংবাদমাধ্যমের সামনে মুখ খুলে তাঁরা জানিয়েছেন গেরুয়া শিবিরে অশোভন ব্যাক্তির পরিমাণ এত বেশি যে আর সেখানে টেকা সম্ভব নয়। এরই মাঝে খবর, পুরানো দল তৃণমূল থেকেই শোভন চট্টোপাধ্যায়কে ফোন করেছেন তৃণমূলের এক শীর্ষ নেতা। প্রস্তাব এসেছে দলে ফিরে আগের মতো কাজ শুরু করার। শনিবার সংবাদ মাধ্যমের সামনে এমনই চাঞ্চল্যকর খবর ফাঁস করলেন শোভন বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। যদিও তৃণমূলে তিনি ফের ফিরবেন কিনা সে বিষয়ে বিস্তারিত কিছুই বলেননি। তবে সম্ভাবনা প্রবল।

শনিবার ডাকঢোল পিটিয়ে সংবাদমাধ্যমের সামনে শোভনের হিতাকাঙ্ক্ষী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় দাবি করেন, তৃণমূলে এক শীর্ষ নেতা শোভন চট্টোপাধ্যায়ের কাছে দলে ফেরার আবেদন জানিয়ে ফোন করেছিলেন। তবে তার সঙ্গে শোভনের কি কথা হয়েছে সে বিষয়ে বৈশাখী বিস্তারিত কিছু না বললেও, এটুকু বলেন যে তৃণমূলের বহু নেতা শোভনকে ‘মিস’ করছেন। তবে শোভন ফিরবেন কিনা তা নিয়ে বৈশাখীকে প্রশ্ন করা হলে, একেবারে পোক্ত রাজনৈতিক নেতার মতো বৈশাখীর মন্তব্য, ‘টাইম উইল টেল’। তবে সময় যাই বলুক না কেন, আপাতত তৃণমূলে ফিরতে শোভন যে পা তুলে রেখেছেন তা বোঝাই যাচ্ছে এমনটাই দাবি রাজনৈতিক মহলের। এদিকে শোভন ইস্যুতে বৈশাখী আরও বলেন, ‘যে ক্ষোভ গুলির জন্য শোভন চট্টোপাধ্যায় দল ছেড়েছিলেন সেগুলি যদি সময়ে প্রশমিত করা যেত তাহলে দল ছাড়ার প্রয়োজনই পড়ত না।’ অর্থাৎ এটা পরিস্কার হিত গৌরব ফিরে পেলে আসতে বাধা নেই শোভনের।

এদিকে শোভনের দলে ফেরার প্রেক্ষিতে তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টপাধ্যায়ের বক্তব্য, ‘শোভনকে তো আমরা সরিয়ে দেইনি। তবে তিনি কি করবেন সে সিদ্ধান্ত তাঁকেই নিতে হবে। উনি যদি দলে ফেরার কথা ভাবেন তবে দলও সিদ্ধান্ত নেবে। আমি সুব্রত প্রত্যেকে ওকে বোঝাতে ওর বাড়িতে গিয়েছিলাম। কথা শোনেনি।’ উল্লেখ্য, একরাশ ক্ষোভ নিয়ে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিলেও একটুর জন্যও সেখানে ভালো সময় কাটাতে পারেননি শোভন চট্টোপাধ্যায়। প্রিয় বান্ধবীকে নিয়ে বিজেপির অশোভন নেতাদের বাঁকা কথা, কুনজরে রীতিমতো অতিষ্ঠ ছিলেন শোভন বৈশাখী। ঘোষণা করেছিলেন দল ছাড়ার কথা আপাত ভাবে মুকুল রায় তাঁকে বুঝিয়ে শান্ত করলেও স্বাভাবিক হয়নি পরিস্থিতি। এহেন সময়ে ফের তৃণমূল থেকে ডাক পেয়ে নিজের রাজনৈতিক জীবনে শোভন আশার আলো দেখতে পেলেন বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here