kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: এ বড় দুর্দিনের বাজার। আর এমন একটা দিনে বাড়ির অত্যন্ত বিশ্বস্ত কেজো ছেলেটা ঘর ছেড়ে অভিমানে বাইরে পড়ে থাকবে, এটা মেনে নেওয়া যায় না। ‘অঘটন’ও তো ঘটতে পারে, নাকি। তাই এবার শোভনের মান ভাঙিয়ে তাঁকে ঘরে ফেরাতে নিজের আস্তিন থেকে আরও একটা তাস ছাড়ল তৃণমূল। দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হল শোভন স্ত্রী রত্না চট্টোপাধ্যায়কে। দলের আশা এবার হয়ত সব রাগ অভিমান ভুলে প্রাক্তন মন্ত্রী শোভন চট্টোপাধ্যায় ফিরে আসবেন তৃণমূলে।

স্ত্রী রত্না চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে সাংসারিক অশান্তিতে জড়ানো ও বৈশাখী ঘনিষ্ঠতা কাল হয়ে দাঁড়িয়েছিল শোভনের। তাঁরই ফলস্বরূপ দিদির প্রতি একরাশ অভিমান নিয়ে আজ তিনি দল ছাড়া। এদিকে সময় যত গড়িয়েছে দলে বিশ্বাসযোগ্যতা অর্জন করে নিয়েছেন শোভন স্ত্রী রত্না। কিছুদিন আগে মুখ্যমন্ত্রী বেহালার ১৩১ নম্বর ওয়ার্ডের দায়িত্ব তুলে দিয়েছেন রত্নার হাতে। কিন্তু সময়ের সঙ্গে সঙ্গে তৃণমূল বুঝেছে দলে কতখানি গুরুত্বপূর্ণ ছিলেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। সুযোগ বুঝে ওঁত পেতে থাকা বিজেপিও হানা দিয়েছে শোভনের দরজায়। এহেন পরিস্থিতিতে আর যে বসে থাকা যায়না তা বুঝেই একের পর এক দূত চলে গিয়েছে শোভনের মান ভাঙাতে। এরই মাঝে জানা গেল ১৩১ নম্বর ওয়ার্ডের দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে রত্না চট্টোপাধ্যায়কে। তবে কেন ও কি কারণে তা অবশ্য জানা যায়নি।

এদিকে এই ঘটনার প্রেক্ষিতে রাজনৈতিক মহলের অনুমান, তৃণমূলের উপর শোভনের চটে যাওয়ার পিছনে অনেক কারণের মাঝে অন্যতম একটি কারণ রত্না। তাঁকেই তৃণমূলে এত গুরুত্ব দেওয়াটা মেনে নিতে পারেননি শোভন। শেষবার পার্থ চট্টোপাধ্যায় যখন তাঁর বাড়িতে সাক্ষাৎ করতে আসেন দলে ফিরে আসার জন্য। তখন হয়ত পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে বেশ কিছু শর্ত চাপান শোভন। যেখানে রত্নার বিষয়টিও ছিল। এরপরই তড়িঘড়ি সিদ্ধান্ত নেয় তৃণমূল। সূত্র মারফৎ জানা গিয়েছে, দায়িত্ব থেকে সরানো হয়েছে রত্না চট্টোপাধ্যায়কে। তবে এইটুকুতে শোভনের রাগ ভাঙে কিনা সেটাই এখন দেখার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here