kolkata bengali news

নিজস্ব প্রতিবেদক, মুর্শিদাবাদ: রাজ্যে দ্বিতীয় দফা নির্বাচন শেষ৷ এখনও বাকি পাঁচ দফা৷ তার আগেই রাজনৈতিক হিংসায় উত্তপ্ত বিভিন্ন এলাকা৷ মুর্শিদাবাদ লোকসভা কেন্দ্রে ভোট হতে আর হাতে গোনা দু’দিন বাকি। তার আগেই রানীনগর ২ ব্লকে কংগ্রেস সমর্থকদের হাতে আক্রান্ত হলেন তৃণমূল কংগ্রেসের পঞ্চায়েত সদস্য সহ বেশ কয়েকজন তৃণমূল কর্মী, এমনটাই অভিযোগ শাসকদলের। ঘটনায় কান ও নাক ফেটে গুরুতর জখম হন তৃণমূল পঞ্চায়েত সদস্য ও কর্মীরা।
শনিবার রাতে তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীদের ওপর আক্রমণের ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে মুর্শিদাবাদের রাণীনগর থানার কালিনগর গ্রামে। এদিন রাতে নির্বাচন সংক্রান্ত কাজ সেরে বাড়ি ফিরছিলেন কালিনগর ১ গ্রাম পঞ্চায়েতের তৃণমূল কংগ্রেসের পঞ্চায়েত সদস্য তুহিন সরকার। তখন অতর্কিতভাবে কংগ্রেস কর্মীরা তার ওপর হামলা চালায় বলে অভিযোগ।

মাটিতে ফেলে বাস, লোহার রড দিয়ে এলোপাথাড়ি মারতে থাকে। রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে লুটিয়ে পড়েন তিনি। চিৎকারের আওয়াজ শুনে তুহিন সরকারের ভাই শরিফুল ইসলাম ভাইকে বাঁচাতে এলে তাকেও মাটিতে ফেলে বাঁশ দিয়ে মারতে থাকে দুষ্কৃতীরা। হট্টগোল ও চিৎকার আওয়াজ শুনে আশেপাশের তৃণমূল সমর্থকরা এগিয়ে এলে তাদের ওপরেও চড়াও হয় কংগ্রেসের দুষ্কৃতীরা, অভিযোগ উঠেছ। লোহার রড, বাস ও পাথরের আঘাতে বেশ কয়েকজন তৃণমূল কংগ্রেস সমর্থক গুরুতর আহত হন।

কারও মাথা ফেটে যায়, কারও নাক কান ফেটে যায়, তো কারোও হাত ভেঙে যায়। স্থানীয় বাসিন্দা আহতদের প্রথমে গোধনপাড়া প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যান। গুরুতর আহত তিনজন তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীকে মুর্শিদাবাদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। ঘটনার খবর পেয়ে আসেন রানীনগর থানার পুলিশ। এলাকায় উত্তেজনা থাকায় এলাকাজুড়ে বিশাল পুলিশ বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। দোষীরা অধরা তাদের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে রানীনগর থানার পুলিশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here