কাটমানি নেওয়া ও চাকরির জাল নিয়োগপত্র দেওয়ার অভিযোগে গ্রেফতার তৃণমূলের ছাত্রনেতা

0
150

নিজস্ব প্রতিবেদক, বালুরঘাট: ফের প্রকাশ্যে এল কাটমানির অভিযোগ। তবে এবার কাউন্সিলার বা মন্ত্রী নন, কাটমানির অভিযোগে বিদ্ধ হলেন তৃণমূলের ছাত্র নেতা। শুধু অভিযোগ ওঠা নয়, পুলিশ তাঁকে গ্রেফতারও করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ দিনাজপুল জেলার তপন থানার বাঘইট গ্রামে। পুলিশ জানায়, ধৃত ছাত্রনেতার নাম মিলন বর্মন। তিনি তপনের তৃণমূল ছাত্র পরিষদের ব্লক সভাপতি ছিলেন। সিভিক ভলেন্টিয়ারের চাকরি দেওয়ার নাম করে টাকা তোলা ও জাল নিয়োগপত্র দেওয়ার অভিযোগেই তাঁকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, তপন থানার বাঘইট গ্রামের বাসিন্দা জনি সাহাকে সিভিক ভলেন্টিয়ারের চাকরি দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন তৃণমূল ছাত্র পরিষদের ব্লক সভাপতি মিলন বর্মন। তবে চাকরি করে দেওয়ার জন্য তিনি জনি সাহার কাছ থেকে ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকার দাবি করেন। মিলনের এই দাবি জনি মেনে নেন এবং মোট বাবদের অর্ধেক টাকা অর্থাৎ ৬০ হাজার টাকা অগ্রিম দিয়েও দেন তিনি। তারপর গত শনিবার মিলন বর্মন সিভিক ভলেন্টিয়ারের চাকরির নকল নিয়োগপত্র দিয়ে জনি সাহার কাছে বকেয়া ৬০ হাজার টাকার দাবি করেন বলে অভিযোগ। ঘটনাটি জানতে পেরে রবিবার তপন থানার পুলিশ তৃণমূল ছাত্র পরিষদের ব্লক সভাপতি মিলনকে গ্রেফতার করে।

তবে এই গ্রেফতারি খুব একটা সহজ ব্যাপার ছিল না বলে জানিয়েছে পুলিশ। তপন থানার পুলিশ আধিকারিক জানান, চাকরি পাইয়ে দেওয়ার নাম করে একটি চক্র কাটমানি তুলছিল বলে বেশ কিছুদিন ধরেই খবর আসছিল। তারপর তপন থানার ওসির নেতৃত্বে এই চক্রকে ধরার জন্য গোপনে তদন্ত শুরু করে পুলিশ। এরপর মিলন বর্মনের বিরুদ্ধে কাটমানির বিনিময়ে চাকরির নিয়োগপত্র দেওয়ার খবর পেতেই তাঁকে গ্রেফতার করে পুলিশ। মিলন কেবল নকল নিয়োগপত্র দেননি, তিনি ওই নিয়োগপত্রে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন আধিকারিকের স্বাক্ষর ও স্ট্যাম্প জাল করেছিলেন বলেও পুলিশ সূত্রে খবর।

এহেন কাজে দলের ছাত্র সভাপতিকে অবশ্য আড়াল করেনি তৃণমূল নেতৃত্ব। শীঘ্রই অভিযুক্ত মিলন বর্মনকে তার পদ ও দল থেকে বহিষ্কৃত করা হবে জানিয়ে উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন প্রতিমন্ত্রী (দক্ষিণ দিনাজপুরের একমাত্র মন্ত্রী) তথা তপন বিধানসভার বিধায়ক বাচ্চু হাঁসদা বলেন, ‘আমিও শুনেছি সিভিক ভলেন্টিয়ারের চাকরি দেওয়ার নাম করে টাকা নেওয়ার ঘটনা এবং ফলস অ্যাপয়েন্টমেন্ট লেটার দেওয়ার ঘটনায় তপন থানার পুলিশ আইনানুগ ব্যবস্থা নিয়েছে। এমন কোনও ব্যক্তি এই ধরনের আইনবিরুদ্ধ কাজের সঙ্গে জড়িত থাকলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রশাসন নেবে। আর দলের তরফে আমরা চেষ্টা করব, এই ধরনের দুর্নীতিবাজ অভিযুক্তদের তার পদ থেকে ও দল থেকে ছাঁটাই করার।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here