kolkata news

Highlights

  • করোনা ভাইরাস আটকাতে এবার কলকাতা পুরসভার আওতায় থাকা সমস্ত স্বাস্থ্য দফতরকে জরুরী সতর্কতা
  • সোমবার এমনটাই জানান ডেপুটি মেয়র তথা মেয়র পারিষদ স্বাস্থ্য অতীন ঘোষ
  • চিনা ভাইরাস যাতে এই রাজ্যে প্রবেশ করতে না পারে সে বিষয়ে তৎপর রাজ্য সরকার

নিজস্ব প্রতিবেদক, কলকাতা: করোনা ভাইরাস আটকাতে এবার কলকাতা পুরসভার আওতায় থাকা সমস্ত স্বাস্থ্য দফতরকে জরুরী সতর্কতার নির্দেশ দিল কলকাতা পুরসভা। সোমবার এমনটাই জানান ডেপুটি মেয়র তথা মেয়র পারিষদ স্বাস্থ্য অতীন ঘোষ। অন্যদিকে বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে ভর্তি যে চিনা যুবতী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত বলে সন্দেহ করা হচ্ছিল সেই সন্দেহ যে ভুল বলে প্রমাণিত হয়েছে একথা ঐদিন স্পষ্ট করে দেন অতীন ঘোষ।

এদিন স্বাস্থ্য পারিষদ অতীন ঘোষ জানান, ‘চিনা ভাইরাস করোনা যাতে এই রাজ্যে প্রবেশ করতে না পারে সে বিষয়ে ইতিমধ্যেই তৎপর হয়েছে রাজ্য সরকার। কলকাতা পুরসভার তরফ থেকে এই বিষয়ে কলকাতা পুরসভার আওতায় থাকা স্বাস্থ্য দফতর গুলোকে জরুরী ভিত্তিতে সর্তকতা অবলম্বন করতে বলা হয়েছে। করোনা ভাইরাসের যে সমস্ত প্রাথমিক লক্ষণ রয়েছে সেই সমস্ত লক্ষণ নিয়ে যদি কোনো রোগী আসে, সে ক্ষেত্রে হায়ার অথরিটিকে জানানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে স্বাস্থ্য দফতর গুলোকে। এরপর চিকিৎসা করে যদি করোনা ভাইরাসের নমুনা পাওয়া যায় ওই রোগীর শরীর থেকে সেক্ষেত্রে কলকাতা পুরসভার তরফ থেকে সেই রোগীর নাম ঠিকানা পাঠানো হবে রাজ্য সরকারের কাছে। এর পরবর্তী পদক্ষেপ হিসেবে যা ব্যবস্থা গ্রহণ করার রাজ্য সরকারই করবে।’

অন্যদিকে রবিবার রাতে বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে এক চিনা যুবতীকে ভর্তি করা হয়। তার রোগের প্রাথমিক যে লক্ষণগুলো ছিল সেই সমস্ত লক্ষণগুলি দেখে অনুমান করা হচ্ছিল তিনি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে থাকতে পারেন। এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পরই আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে গোটা শহরে। যদিও এদিন এই আতঙ্কের অবসান ঘটিয়ে মেয়র পরিষদ স্বাস্থ্য ঘোষণা করেন যে, বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে গেছিলাম যুবতী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত বলে সন্দেহ করা হচ্ছিল সেটি সঠিক বলে প্রমাণিত হয়নি। তার শরীরে যে করোনা ভাইরাস নেই সে বিষয়ে ইতিমধ্যেই বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে তরফ থেকে লিখিতভাবে জানানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত, রাজ্য স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে, রাজস্থানের চার জেলার ১৮ জন চিন থেকে দেশে ফিরেছেন। ইতিমধ্যেই তাঁদের পর্যবেক্ষণে রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সম্প্রতি চিন থেকে এমবিবিএস করে ফিরেছেন জয়পুরের এক বাসিন্দা। বর্তমানে তাঁকে এসএমএস মেডিকেল কলেজে ভরতি করা হয়েছে। তাঁকে একটি আলাদা ওয়ার্ডে রাখার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

সন্দেহভাজনদের নমুনা পুনে ন্যাশনাল ভাইরোলজি ল্যাবরেটরিতে পাঠানো হচ্ছে। চিন থেকে ভারতে ফিরে আসা ওই ব্যক্তিদের আগামী ২৮দিন পর্যবেক্ষণে রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এরই মধ্যে করোনা ভাইরাসের আক্রান্ত হওয়ার প্রাথমিক উপসর্গ নিয়ে বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন ওই চিনা যুবতী। এরপরই কলকাতায় করোনা ভাইরাস প্রবেশ করেছে বলে ছড়িয়ে পড়ে আতঙ্ক।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here