kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: সনাতন ধর্মের ঐতিহ্য এবং সংস্কৃতি রক্ষা করতে এবার নতুন দু’টি কাজ করা যাবে না হিন্দুদের। তারা কেক কাটতে পারবে না এবং মোমবাতিও জ্বালাতে পারতে না। তাহলে সনাতন ধর্মের অবমাননা করা যাবে। ফের এক নতুন বিতর্কিত মন্তব্যে শিরোনামে উঠে এলেন নরেন্দ্র মোদীর মন্ত্রিসভার মন্ত্রী তথা বেগুসরাইয়ের সাংসদ গিরিরাজ সিং।

তিনি বলেছেন, জন্মদিনে কেক না কেটে বা মোমবাতি না জ্বালিয়ে হিন্দু শিশুদের যেন রামায়ণ, গীতা, হনুমান চালিশা পাঠ অভ্যাস করানো হয়। তবেই সনাতন ধর্ম বেঁচে থাকবে।

রবিবার তিনি দিল্লিতে সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, ‘মা কালীর নামে আমাদের শপথ করুন, সনাতন ধর্মের ঐতিহ্য রক্ষা করতে নিজেদের বাচ্চাদের আপনারা রামায়ণ পাঠ করাবেন বা হনুমান চালিশা পাঠ করাবেন।’ এরপরই তিনি অনুরোধ করেন হিন্দুরা যেন কেক কেটে জন্মদিন উদযাপন না করে। গিরিরাজের কথায়, ‘সনাতন ধর্ম বাঁচাতে আমাদের প্রত্যেককে এগিয়ে আসতে হবে। যারা জন্মদিন পালন করেন তারা শপথ নিন যে মোমবাতি জ্বালাবেন না। কেকও কাটবেন না। এর বদলে গিয়ে মন্দিরে মহাদেব শিব বা মা কালীর পুজো করুন। আর জন্মদিনে মাটির প্রদীপ জ্বালান।’

মূলত ইংরেজি স্কুলে পঠনপাঠনের কারণেই ভারতীয়দের এই ‘অপসংস্কৃতি’ ধরেছে বলে মনে করছেন গিরিরাজ। তিনি বলেন, ‘অন্যান্য ধর্মে মানুষ রবিবার চার্চে যায়, শুক্রবার প্রার্থনা করে। তাদের বাচ্চারা সেই শিক্ষাটাই নেয়। কিন্তু আমাদের বাচ্চারা ওই মিশনারী স্কুলে যীশু খ্রীষ্টের মূর্তি দেখে এসে ঘরে বলে, তারা মাথায় তিলক লাগবে না, বা মাথায় টিকি রাখবে না।’ আমাদের সনাতন ধর্ম তাহলে কীভাবে বেঁচে থাকবে? প্রশ্ন তুলেছেন গিরিরাজ।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here