ডেস্ক: রাস্তা ঘাটে, ট্রামে, বাসে শ্লীলতাহানীর শিকার হননি এমন মহিলা কমই আছেন। যার মধ্যে সিকিভাগই হয়ত প্রতিবাদ করেন, আর বাকিরা লজ্জায়, ভয়ে মুখ বুজে থাকেন। তবে রাজ্য তথা দেশে দিনের পর দিন বেড়ে চলা শ্লীলতাহানি রুখতে নয়া নিধান দিলেন মধ্যপ্রদেশের এক বিজেপি বিধায়ক।

মধ্যপ্রদেশের গুনায় এক সরকারি কলেজের অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে ওই বিজেপি বিধায়ক পান্নালাল সাকিয়ার বক্তব্য মেয়েরা কোনও ছেলে বন্ধু রাখবে না, এবং ছেলেরাও কোনও মেয়ে বন্ধু রাখবে না। এটা যদি করা যায় তবে ভারতবর্ষের বুকে শ্লীলতাহানির মতো ঘৃণ্য ঘটনা একেবারেই কমে যাবে। বলার অপেক্ষা রাখে না বিজেপি বিধায়কের এহেন মন্তব্য নতুন করে বিতর্ক উস্কে দিয়েছে মধ্যপ্রদেশের রাজনীতিতে।

সাম্প্রতিক সময়ে বিজেপি শাসিত মধ্যপ্রদেশ রাজ্যে ঘটেছে একের পর এক শ্লীলতাহানির ঘটনা। তা রুখতে সরকারের পক্ষ থেকে কি ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে কি ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে তা জানতে চাওয়া হলে ওই বিধায়ক বলেন, ‘মেয়েরা যদি শ্লীলতাহানীর হাত থেকে বাঁচতে চান তবে ছেলে বন্ধু রাখা বন্ধ করুন। একই সঙ্গে ছেলেদেরও উচিৎ তা বন্ধ করা।’ শুধু তাই নয়, ভারতে প্রতিবছর সাড়ম্বরে নারী দিবস উদযাপনেরও বিরোধিতা করেন সাকিয়া। তাঁর কথায়, ‘আমার দেশে চারবার নারী দিবস উদযাপন হয়। অর্থাৎ নবরাত্রি উদযাপন করি। সেখানে আলাদা করে নারী দিবস পালনের কোনও মানে হয় না।’ এদিন গুনার ওই কলেজে ছাত্র ছাত্রীদের হাতে মোবাইল ফোন তুলে দেন ওই বিধায়ক। একইসঙ্গে ফোন গুলির যাতে কোনওরকম অপব্যবহার না হয় সেবিষয়ে ছাত্রীদের সতর্ক করতেও ভোলেননি তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here