মোদীর জন্মদিনে তাঁর দীর্ঘায়ু কামনায় যজ্ঞ করলেন তৃণমূল বিধায়ক সব্যসাচী

0
738

মহানগর ওয়েবডেস্ক: তৃণমূলের সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক আদায় কাঁচকলায়। তবে তাবড় তাবড় বিশেষজ্ঞদের অনুমান কীভাবে খেয়ালের খেলায় ঘুরিয়ে দিতে হয় তা বেশ ভালোই জানেন তৃণমূল বিধায়ক সব্যসাচী দত্ত। হয়ত সেই কারণেই ঘাসফুলের প্রবল প্রতিদ্বন্দ্বী দল বিজেপিতে যোগ দেওয়ার একাধিক সুযোগ থাকলেও তিনি খাতায় কলমে আজও তৃণমূল। তবে মুখে যাই বলুন না কেন, মনের দিক থেকে তিনি যে আপাদমস্তক বিজেপি তার প্রমাণ দিলেন এদিন। মঙ্গলবার মোদীর দীর্ঘায়ু কামনায় যজ্ঞে বসলেন বিতর্কিত তৃণমূল বিধায়ক সব্যসাচী দত্ত।

মঙ্গলবার ৬৯ বছর বয়সে পা দিয়েছেন দেশের প্রধান মন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ভিভিআইপি এহেন ব্যক্তির জন্মদিনে তাঁকে শুভেচ্ছাবার্তায় ভরিয়ে দিয়েছেন তাবড় তাবড় নেতা মন্ত্রীরা। শুভেচ্ছা জানিয়েছেন রাহুল গান্ধী থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। বিজেপির তরফে একাধিক জায়গায় চলেছে লাড্ডু বিলি ও জনসেবা মুলক কাজ। আর সেই পথেই সল্টলেকের সুইমিং পুল ক্লাব এলাকায় এক পুজো অনুষ্ঠিত হয় সেখানেই যজ্ঞে বসেন সব্যসাচী দত্ত তার সঙ্গে দেখা যায় বিজেপি নেতা সুমন বন্দ্যোপাধ্যায়কেও। খুব স্বাভাবিকভাবে এই ছবি প্রকাশ্যে আশার পর দানা বাঁধে বিতর্ক। শুধু এটাই নয়, সম্প্রতি নিজের এলাকায় গণেশ পুজোর আয়োজন করেছিলেন সব্যসাচী। পুজোমন্ডপ ছিল পুরোপুরি পদ্মের আকারের। পুজোর উদবধনে উপস্থিত ছিলেন, অরবিন্দ মেনন, দিলীপ ঘোষ এবং মুকুল রায়রা। পুজো দেখতে মন্ডপে আসতে দেখা যায় কৈলাস বিজয়বর্গীয়কে।

উল্লেখ্য, বিধায়ক সব্যসাচী দত্তকে নিয়ে বহুদিন ধরে ঝঞ্ঝাটে রয়েছে তৃণমূল। অনেকটা গলায় বিঁধে থাকা কাটার মতো না পারছে গিলতে না পারছে উগরাতে। পরিস্থিতির জেরে বিধাননগরের মেয়র পদও খোয়াতে হয় সব্যসাচীকে। তৃণমূলের সঙ্গে দুরত্ব যত বাড়ে ঘনিষ্ঠতা ততই বাড়তে থাকে বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের সঙ্গে। এরপর এই ঘটনায় বিজেপিতে যোগ না দিলেও আজ সব্যসাচী যে মনে প্রাণে তৃণমূলে পরিণত হয়েছে তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here