kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক:মমতা সরকারের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার দায় নিয়ে সুপ্রিমকোর্ট গিয়েছিলেন হাওড়ার বিজেপি নেত্রী প্রিয়াঙ্কা শর্মার ভাই৷ শীর্ষ আদালতের নির্দেশ অমান্য করেছে মমতা প্রশাসন৷ হাওড়ার বিজেপি নেত্রী মমতা শর্মাকে মুক্তি দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল শীর্ষ আদালত৷ সেই নির্দেশ যথা সময়ে পালন করেনি বাংলা রাজ্য সরকার৷ এই নিয়ে সুপ্রিমকোর্টকে নালিশ জানান প্রিয়াঙ্কার ভাই৷ তাঁর এই নালিশের ভিত্তিতে সোমবার শীর্ষ আদালত প্রিয়াঙ্কা কাণ্ডে জবাবদিহি চেয়েছে৷ চার সপ্তাহের মধ্যে রাজ্য সরকারকে জবাব দিতে হবে৷

Read More -নতুন মাস পড়তেই মধ্যবিত্তদের জন্য সুখবর! এক পলকে পতন ঘটল রান্নার গ্যাসের দামে

নিউইয়র্কে একটি ফ্যাশন অনুষ্ঠানে বলিনায়িকা প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার ছবির সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের মুখ বসিয়ে দিয়ে ফেসবুকে একটি মিম পোস্ট করেছিলেন হাওড়ার বিজেপি যুব মোর্চা নেত্রী প্রিয়াঙ্কা শর্মা৷ তাঁর বিরুদ্ধে হাওড়ার এক তৃণমূল নেতা পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করেছিসেন৷ সেই অভিযোগের ভিত্তিতে চলতি বছরের ১০ মে তাঁকে গ্রেফতার করে পুলিশ৷ তাঁর বিরুদ্ধে মুখ্যমন্ত্রীকে কুরুচিকর মন্তব্য করার অভিযোগে মামলা দায়ের করা হয়েছিল৷ হাওড়া আদালত তাঁকে ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দেয়৷ তবে সুপ্রিমকোর্টে জামিন পান প্রিয়াঙ্কা৷ শীর্ষ আদালত পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারকে ১৪ মে প্রিয়াঙ্কাকে মুক্তি দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল৷ তবে প্রিয়াঙ্কা মুক্তি পান ১৫ মে৷ কেন তাঁর দিদিকে একদিন পরে মুক্তি দিল রাজ্য সরকার? এই প্রশ্ন নিয়ে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে আদালতের অবমাননার অভিযোগ জানিয়ে ফের সুপ্রিমকোর্টে যান প্রিয়াঙ্কার ভাই৷

Read More – বিজেপির শাসনকাল দেশজুড়ে সংখ্যালঘুদের আতঙ্কিত করে তুলেছে, দাবি ওয়েইসির

২০১৬ সালে দ্বিতীয়বার ক্ষমতা দখলের পরে নেট দুনিয়ায় বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়কে নিয়ে সোশাল নেটওয়ার্কে মিমে মিমে ছয়লাপ হয়ে গিয়েছে৷ অনেক মিম অত্যন্ত আপত্তিজনক ও কুরুচিকর৷ লোকসভা ভোট চলাকালীন মমতা প্রশাসন মুখ্যমন্ত্রী বিরুদ্ধে এই সব মিম নিয়ে কঠোর অবস্থান নিয়েছিল৷ তার ফলেই গ্রেফতার হতে হয়েছিল প্রিয়াঙ্কা শর্মাকে৷ এর আগে এই একই অপরাধে হাজতবাস হয়েছিল অধ্যাপক অম্বরীশ মহাপাত্রকে৷ এই মামলা শীর্ষ আদালতে বিচারপতি ইন্দিরা বন্দোপাধ্যায় ও বিচারপতি সঞ্জীব খান্নার ডিভিশনা বেঞ্চ৷ মমতা সরকারের এমন আচরণ প্রাথমিকভাবে  স্বৈরতান্ত্রিক স্বেচ্ছাচারিতা মনে হয়েছিল বিচারপতি ইন্দিরা বন্দোপাধ্যায়ের৷ তবে তিনি জানিয়েছিলেন এই মিম প্রকাশের জন্য প্রিয়াঙ্কাএক মমতার কাছে ক্ষমা চাইতে হবে৷  আদালতের এই নির্দেশ  মানতে রাজী হননি প্রিয়াঙ্কা৷ তারপরে অবশ্য বিচারপতিরা স্পষ্ট নির্দেশ দিয়েছিলেন ক্ষমা না চাইলেও তাঁদের নির্দেশ অনুসারে  নির্ধারিত দিনে মুক্তি দিতে হবে  প্রিয়াঙ্কাকে৷ সেই নির্দেশ মানেনি রাজ্য সরকার৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here