national news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: ৩ নভেম্বর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে পরাজিত হলেও শান্তিপূর্ণ ভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর করবেন কিনা সে ব্যাপারে পরিষ্কার করে কোনও কথা দিতে অস্বীকার করেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। নির্বাচনে ট্রাম্পের প্রতিপক্ষ জো বাইডেন জয়ী হলে গণতন্ত্রের প্রাথমিক নিয়ম মেনে ট্রাম্প সেই জয়কে মেনে নিয়ে সরে দাঁড়াবেন কিনা সাংবাদিকদের এই প্রশ্নের উত্তরে প্রেসিডেন্ট   জানিয়ে দেন, ‘’দেখা যাক কী হয়।‘’

নির্বাচনের প্রাথমিক পূর্বাভাস অনুযায়ী সবক্ষেত্রেই ডোনাল্ড ট্রাম্প তার প্রতিপক্ষ জো বাইডেন–এর থেকে পিছিয়ে রয়েছেন। এখনও পর্যন্ত মার্কিন নাগরিকের যে মতিগতি বিশেষজ্ঞরা পর্যবেক্ষণ করেছেন তার ভিত্তিতে ট্রাম্পের পরাজয় প্রায় নিশ্চিত বলা যায়। এই পরিপ্রেক্ষিতে ট্রাম্প ডাক যোগে ব্যালটে ভোট নিয়ে প্রবল সোচ্চার হয়েছেন।

কোভিড–১৯ অতিমারীর আবহে নির্বাচন হওয়ার ফলে এবারের নির্বাচনে ডাক যোগে ব্যালটের মাধ্যমে ভোটদানের সংখ্যা যথেষ্ট বেশি হতে চলেছে। এই পদ্ধতি নিয়ে ট্রাম্প প্রথম থেকেই আপত্তি জানিয়ে আসছেন। তার বক্তব্য ব্যলটের মাধ্যমে যত বেশি ভোট হবে ততই ডেমোক্র্যাটদের কারচুপি করার সুযোগ বাড়বে। যদিও আজ পর্যন্ত আমেরিকায় ব্যালটের মাধ্যমে নির্বাচনে কারচুপির তেমন কোনও প্রমাণ পাওয়া যায়নি। যদিও ট্রাম্প সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ‘’আপনারা জানেন ব্যালট নিয়ে আমি প্রথম থেকেই আপত্তি জানিয়ে আসছিলাম। ব্যালট একটি বিপর্যয়।‘’

সাংবাদিক সম্মেলনে প্রেসিডেন্ট বলেন, ব্যালটে ভোট বাতিল করা হলে তার জয় নিশ্চিত। তিনি যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসের সঙ্গেই বলেন, ব্যালট যদি বাতিল করা হয় তাহলে ক্ষমতা হস্তান্তরের কোনও প্রশ্নই উঠবে না। তিনিই পুনর্নিবাচিত হবেন। প্রেসিডেন্ট ক্রমাগত বলে চলেছেন আগামী ৩ নভেম্বর প্রেসিডেন্ট নির্বাচন কোনওভাবেই পরিচ্ছন্ন হবে না।

এরই মধ্যে সুপ্রিম কোর্টে উদার মতাবলম্বী বিচারপতি প্রয়াত রুথ বেদার গিন্সবার্গ–এর শূন্যস্থানে ট্রাম্প একজন দক্ষিণপন্থী  বিচারপতিকে মনোনয়ন দেওয়ার প্রস্তুতি নিয়েছেন। এই কাজে তিনি সফল হলে সুপ্রিম কোর্টের নজন বিচারপতির মধ্যে দক্ষিণপন্থীরাই সংখ্যাধিক্য হয়ে যাবেন। ডেমোক্র্যাটরা ট্রাম্পের এই পদক্ষেপের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন। তাদের বক্তব্য নির্বাচনের আগে এভাবে কোনও বিচারপতিকে মনোনীত করা অনৈতিক। তাদের আশঙ্কা ব্যালট ভোটকে কেন্দ্র করে মামলা সুপ্রিম কোর্ট পর্যন্ত গড়ালে ট্রাম্পের পক্ষে রায় যাবে। ‘’এবারের নির্বাচন সুপ্রিম কোর্ট পর্যন্ত গড়াবে’’, ট্রাম্পের এই উক্তি ডেমোক্র্যাটদের আশঙ্কাকে আরও শক্তিশালী করেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here