নিজস্ব প্রতিবেদক, পুরুলিয়া: টাকা দিলেই পেয়ে যাবে অনার্স। ভর্তি হতে পারবে কলেজে। পড়তে পারবে নিজের পছন্দ মতন বিষয় নিয়ে। গড়ে তুলতে পারবে কেরিয়ার। এই রকমই হাজারো স্বপ্ন দেখিয়ে চলছিল টাকা লোটার ব্যবসা। কিন্তু সোমবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজে আশুতোষ কলেজে গিয়ে ভর্তি হবার বিষয়টি নিয়ে তদারকি করেন। তারপর থেকেই জেলায় জেলায় কলেজে ভর্তি নিয়ে কড়া হয় জেলা পুলিশ প্রশাসন। মঙ্গলবারই হুগলি জেলা পুলিশের কাছে অভিযোগ আসে যে শ্রীরামপুর মহকুমার উত্তরপাড়া প্যারীমোহন কলেজে মোটা টাকার বিনিময়ে ভর্তির প্রতিশ্রুতি দিয়ে টাকা তুলছে এবিভিপির দুই ছাত্র নেতা। এর পরেই ওই দুই ছাত্র নেতার পিছনে নিজেদের লোক লাগায় পুলিশ।

দেখা যায় তারা কাউকে ত্রিশ হাজার, কাউকে চল্লিশ হাজার কাউকে বা পঞ্চাশ হাজার টাকার বিনিময়ে মনমত বিষয়ে অনার্স পাইয়ে দেওয়ার বিষয় নিয়ে প্রতিশ্রুতি দিচ্ছে। ঘটনাচক্রে এদিনই বি কম প্রথম বর্ষে ভর্তির জন্য এসেছিল দুই ছাত্র। তাদের সঙ্গে যোগাযোগ হয় ওই দুই ছাত্র নেতা সঞ্জু সিং ও শুভ অধিকারীর। দুই ছাত্রকেই তারা অনার্স পাইয়ে দেবার বিনিময়ে মোটা টাকা হেঁকে বসে। সেই খবর কানে যায় কলেজ সংসদের ছাত্রনেতাদের। তারাই তখন ওই দুজনকে আটক করে পুলিশকে খবর দেয়। হয়ত উর্দিধারীরাও এই মক্ষম সময়টার জন্য বসেছিল। হাতেনাতে অভিযোগ পেয়েই তারা সঙ্গে সঙ্গে আটক করে দুজনকে। জানা গিয়েছে, সঞ্জু কলেজের ছাত্র হলেও শুভ বহিরাগত। সঞ্জুর বাড়ি বারুইপাড়ায় আর শুভ থাকে বেগমপুরে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here