kolkata news

Highlights

  • পণের দাবিতে দু’মাসের অন্তঃসত্ত্বা বধূকে পিটিয়ে শ্বাসরোধ করে খুনের অভিযোগ উঠল
  • স্বামী-সহ শ্বশুরবাড়ির চার জনের বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ দায়ের করেছে পরিবার
  • অভিযোগের ভিত্তিতে স্বামী শেখ ফারুক ও শাশুড়ি আসমারা বিবিকে গ্রেফতার করা হয়েছে


নিজস্ব প্রতিনিধি, দেগঙ্গা:
পণের দাবিতে দু’মাসের অন্তঃসত্ত্বা বধূকে পিটিয়ে শ্বাসরোধ করে খুনের অভিযোগ উঠল শ্বশুরবাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে। নিহতের নাম খাদিজা বিবি(২২)। ঘটনাটি ঘটেছে দেগঙ্গা থানার আমুলিয়া পঞ্চায়েতের চাঁদপুর গ্রামের মেঠোপাড়া এলাকায়। ঘটনার পরই নিহতের দাদা বাবুর আলি দেগঙ্গা থানায় খাদিজার স্বামী-সহ শ্বশুরবাড়ির চার জনের বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ দায়ের করেছেন।দেগঙ্গা থানার পুলিশ জানিয়েছে, অভিযোগের ভিত্তিতে স্বামী শেখ ফারুক ও শাশুড়ি আসমারা বিবিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকি দুই অভিযুক্ত পলাতক। তাদের খোঁজে তল্লাশি শুরু হয়েছে।

স্থানীয় ও পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, প্রায় ৬ মাস আগে দেগঙ্গার নিরামিশা গ্রামের আবু জাফর মণ্ডলের মেয়ে খাদিজা বিবির সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল আমুলিয়া চাঁদপুরের মেঠোপাড়ার শেখ ফারুকের। খাদিজার দাদা বাবুর আলি বলেন, বিয়ের সময় নগদ ৬০ হাজার টাকা-সহ দাবিমতো সমস্ত কিছুই দেওয়া হয়েছিল। তারপরও বিভিন্ন দাবিতে বোনের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে থাকে ওর শ্বশুরবাড়ির লোকেরা। শুরু হয় অত্যাচার। এরই মধ্যে খাদিজা দু’মাসের অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েন। ফলে, অত্যাচার আরও বেড়ে যায়। গর্ভের ভ্রূণ নষ্ট করার কথাও বলে ওর শ্বশুরবাড়ির লোকেরা। কিন্তু বোন তাতে রাজি না হয়নি।

তিনি আরও বলেন, অত্যাচার দেখে আমরা বোনের হাতে জমি বন্ধকের ৪০ হাজার টাকা দিয়ে শ্বশুরবাড়িতে পাঠাই। সেই টাকা নেওয়ার পরও বোনকে ওর শ্বশুরবাড়ির লোকজন গতকাল মারধর করে। এরপর পিটিয়ে সবাই মিলে শ্বাসরোধ করে খুন করে ঝুলিয়ে দেয়। রাতে আমাদের ফোন করে জানানো হয় খাদিজা আত্মহত্যা করেছে। কিন্তু ও আত্মহত্যা করেনি। ওকে ওর শ্বশুরবাড়ির লোকেরাই খুন করে ঝুলিয়ে দিয়েছে। আমরা অভিযুক্তদের কঠোর শাস্তি চাই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here