মহানগর ডেস্ক:  দিল্লিতে করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। তার মধ্যে দেখা দিয়েছে অক্সিজেনের আকাল। এই পরিস্থিতিতে দিল্লিকে ব্ল্যাকে অক্সিজেন বিক্রি করার জন্য দুই জনকে গ্রেফতার করল পুলিশ। তার মধ্যে একজন অ্যাম্বুল্যান্স চালক রয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

দিল্লির অ্যাম্বুল্যান্স চালক শম্ভু যাদব ফাঁকা অক্সিজেন সিলিন্ডার ভর্তি করে বিক্রি করে। রোগীর পরিবারের থেকে অ্যাম্বুল্যান্স চালক অস্বাভাবিক দাম নেয় প্রতি অক্সিজেন সিলিন্ডারের জন্য। ২২ বছরেরে অনুপ কুমার পেশায় স্বাস্থ্য কর্মী। তিনি শম্ভুকে এই কাজে সাহায্য করত বলে জানা গিয়েছে। অন্য দিকে, দিল্লিকে প্রয়োজনীয় অক্সিজেন দিতে ক্রমেই গড়িমসি করছে কেন্দ্র। সুপ্রিম কোর্ট নির্দেশ দিয়েছে, দিল্লিকে প্রতিদিন ৭৩০ টন তরল অক্সিজেন দিতে হবে।

এই প্রসঙ্গে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল বলেন, রাজ্যে অক্সিজেনের চাহিদা ব্যাপক। এই পরিস্থিতি প্রয়োজনের অর্ধেক অক্সিজেন এখন কেন্দ্র দিল্লিকে দিয়েছে। অন্য দিকে, বিজেপি শাসিত হরিয়ানা ও উত্তর প্রদেশে  প্রয়োজন অনুযায়ী অক্সিজেন পাঠাচ্ছে। কেজরিওয়াল বলেন, অক্সিজেনের ঘাটতির অভাবের জেরে দিল্লির অনেক হাসপাতাল বেড কমিয়ে দিয়েছে। ৭৩০ মেট্রিক টন অক্সিজেন পাওয়ার পর হাসপাতালগুলো আবার বেড বাড়িয়ে দেবে বলে কেজরিওয়াল আশা প্রকাশ করেছে।

এক বিবৃতিতে কেজরিওয়াল বলেন, আরও ৭০০ টন অক্সিজেন পেলে দিল্লি সরকার করোনা রোগীদের জন্য ৯,০০০- ৯,৫০০ টি বেডের ব্যবস্থা করা সম্ভব হবে। আমি আশ্বস্ত করতে পারি, দিল্লিতে অক্সিজেনের অভাবে কোনও করোনা রোগীকে মরতে হবে না। কেন্দ্র সরকার দিল্লিকে ৭০০ টন অক্সিজেন দিতে প্রথমে অস্বীকার করে। তবে প্রথমে দিল্লি হাইকোর্ট ও পরে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে বাধ্য হয়েছে কেন্দ্র দিল্লিকে ৭৩০ টন অক্সিজেন দিতে। তবে কেন্দ্রের থেকে পাঠানো ৭০০ টন অক্সিজেন এখনও দিল্লিতে এসে পৌঁছয়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here