ডেস্ক: এক কোটি টাকা ঘুষ পেলে ছেড়ে দেওয়া হবে উন্নাও ধর্ষণকাণ্ডে মূল অভিযুক্ত কুলদীপ সেঙ্গারকে৷ ফোনের ওপারে একজন সিবিআই অফিসার৷ ঘুষের বদলে অভিযুক্তকে ছেড়ে দেওয়ার টোপ দেখিয়ে ধৃত দুই ‘সিবিআই আফিসার’৷

ঘটনার সূত্রপাত ৫ মে৷ কুলদীপ সেঙ্গারের স্ত্রী সঙ্গীতা সেঙ্গারের উন্নাওয়ের বঙ্গারমানুর বাড়িতে অপরিচিত একটি নম্বর থেকে ফোন আসে৷ ফোনের ওপারের ব্যক্তি প্রথমে নিজেকে বিজেপি নেতা বলে দাবি করে৷ পাশাপাশি ১ কোটি টাকা ঘুষের বদলে কুলদীপকে জেল থেকে ছাড়িয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেয় ওই ব্যক্তি৷ সঙ্গীতা অত টাকা দিতে রাজি না হওয়ায় সে দরদাম করে ৫০ লক্ষ টাকায় মামলা রফা করতে রাজি হয়৷ পরদিন সঙ্গীতার কাছে আরও একটি ফোন আসে৷ ফোনের ওপারের ব্যক্তি দাবি করে সে সিবিআই অফিসার রাজীব মিশ্র৷ সেও কুলদীপের মুক্তি নিয়ে ঘুষ চায়৷ সঙ্গীতাকে তিনি বলেন, ৭ মে সিবিআইয়ের লখনৌ অফিসে গিয়ে সে যেন টাকাটা দিয়ে আসেন৷ সন্দেহ হওয়ায় পরিবারের সদস্যদের সব কথা জানান কুলদীপের স্ত্রী৷ এরপরই গাজীপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়৷ ভুয়ো পরিচয় দিয়ে টাকা হাতানোর অভিযোগে পুলিশ অলোক ও বিজয় নামে দুই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে৷ জানা গিয়েছে তারা লখনৌয়েরই বাসিন্দা৷

এদিকে, বৃহস্পতিবারই সিবিআই স্পষ্ট জানিয়ে দেয়, ২০১৭-র ৪ জুন কুলদীপ ওই নাবালিকাকে ধর্ষণ করেছিল৷ দরজার বাইরে শশী সিং তাকে পাহাড়া দিচ্ছিল৷ নির্যাতিতা স্থানীয় থানায় ধর্ষণের অভিযোগ একাধিকবার জানাতে গেলেও অভিযোগ, পুলিশ এফআইআর নিতে চায়নি৷ উল্টে বারেবারে বিজেপি বিধায়ককে বাঁচাতে চেয়েছে৷ ওই মাসের ২০ জুন ঘটনার প্রথম এফআইআর দায়ের করা হয়৷ সংবাদমাধ্যম ও বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলির চাপে পড়ে যোগী সরকার অভিযুক্তকে গ্রেফতার করতে বাধ্য হয়৷ পরে ঘটনার তদন্তভার নেয় সিবিআই৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here