মহানগর ওয়েবডেস্ক: কথায় আছে ‘রাখে হরি তো মারে কে’। অনেকটা সেই রকমই ঘটনা ঘটল পাকিস্তানের করাচিতে। শুক্রবার পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্সের একটি বিমান ভেঙে পড়ে শহরের বুকে। তবে বরাত জোরে সেই বিমান দুর্ঘটনা থেকে বেঁচে গেলেন প্লেনের দুই যাত্রী। এদের মধ্যে আবার পাকিস্তানের ব্যাঙ্ক অফ পঞ্জাবের প্রধান জাফর মাসুদও রয়েছেন।

দুর্ঘটনার পরে করাচির মেয়র জানিয়েছিলেন ওই বিমানের ৯১ জন যাত্রীই মারা গিয়েছেন। কিন্তু উদ্ধার কার্যের সময় দুইজন যাত্রীকে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। ব্যাঙ্ক অফ পঞ্জাবের প্রেসিডেন্টকে সঙ্গে সঙ্গেই স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। জানা গিয়েছে, তিনি বর্তমানে বিপন্মুক্ত। নিজের পরিবারের সঙ্গেও কথা বলেছেন তিনি। তাঁর শরীরে কোনও পোড়া দাগ বা কোনও হাড় ভাঙেনি। শুধু কিছু জায়গায় কেটে গিয়েছে।

এছাড়া মহম্মদ জুবের নামে আরও এক যাত্রীকে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে। এমনকি তিনি ঘটনার সম্পর্কে জানিয়েছেন, করাচি এয়ারপোর্টের কাছাকাছি পৌঁছাতেই বিমানটি দুলতে শুরু করে। কিছুক্ষন পরেই বিমানটি ভেঙে পড়ে ও তিনি জ্ঞান হারান।

প্রসঙ্গত, দীর্ঘ লকডাউনের পরে গতকাল থেকেই পাকিস্তানে বিমান পরিষেবা শুরু হয়। পিআইএ উড়ান নম্বর পিকে–৮৩০৩ করাচির জিন্না আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের মাটি ছোঁয়ার কয়েক মিনিট আগে মডেল কলোনির কাছে জিন্না গার্ডেন অঞ্চলে ভেঙে পড়ে। অঞ্চলটি যথেষ্ট ঘন বসতিপূর্ণ। যেখানে বিমানটি ভেঙে পড়েছে সেই অঞ্চলে একাধিক বাড়িতে আগুন লেগে যায়। যদিও পিআইএ সিইও জানিয়েছেন, দুর্ঘটনার সময় বিমানটির ল্যাজের দিকটি আগে ধাক্কা খায়, পরে মাথার দিকটি। তাই সামনের দিকে বসা যাত্রীদের বেঁচে থাকার সম্ভাবনা রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here