kolkata bengali news

নিজস্ব প্রতিবেদেক, বনগাঁ ও চুঁচুড়া: রাজ্যের দুই জেলায় দুটি পৃথক পৃথক ধর্ষণের ঘটনায় শোরগোল পড়ল এলাকায়। একটি ঘটনায় মন্দিরের এক পূজারীর বিরুদ্ধে উঠেছে এক নাবালিকাকে ধর্ষণের অভিযোগ। অন্যত্র উঠেছে এক মানসিক ভারসাম্যহীন যুবতীকে দিনের পর দিন ধরে ধর্ষণ করার অভিযোগ তারই এক প্রতিবেশির বিরুদ্ধে। দুটি ঘটনার জেরেই দায়ের হয়েছে অভিযোগ। প্রথম ঘটনাটি ঘটেছে হুগলি জেলার ধনেখালিতে অন্যটি হয়েছে উত্তর ২৪ পরগনা জেলার পেট্রাপোলে।

নাবালিকা ছাত্রীকে ধর্ষনে অভিযুক্ত হলেন এক পূজারী। হুগলি জেলার ধনেখালির কাকগাছি দক্ষিণ পাড়ার এই ঘটনায় অভিযুক্তকে ইতিমধ্যেই গ্ৰেফতার করেছে পুলিশ। অভিযুক্ত ব‍্যক্তির নাম মহাদেব কুমার(৫৫)। আদালতের নির্দেশে অভিযুক্ত এখন জেলা হেফাজতে। নির্যাতিতার বাবা পেশায় দিন মজুর। অভিযোগ গত ১২ই অগাষ্ট দুপুরে বাড়ির পাশে পুকুরপাড়ে বসেছিল নির্যাতিতা। সেই সময় অভিযুক্ত পূজারী তাকে গা হাত পা মালিশ করে দেবার নাম করে ফাঁকা বাড়িতে নিয়ে যায়। অভিযোগ সেই সময় সুযোগ বুঝে মুখে গামছা দিয়ে তাকে ধর্ষণ করে পূজারী। তারপর তার হাতে কিছু টাকা গুঁজে দিয়ে তাকে পূজারী কাউকে কোন কিছু না জানাতে বলে। কিন্তু পরে ওই নাবালিকা অসুস্থ বোধ করায় তার পরিবার ও প্রতিবেশীরা জোর করে জানতে চায় কি হয়েছে তার সঙ্গে। কেন সে পূজারীর ঘরে অনেকক্ষন ছিল তাও জানতে চায় প্রতিবেশীরা। তারপরেই ঘটনাটা খুলে বলে মেয়েটি। এরপরে ধনেখালী থানায় ১৬ই অগাষ্ট লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন নির্যাতিতার মা। সেই দিন অভিযুক্ত ব‍্যক্তিকে গ্ৰেপ্তার করে ধনিয়াখালি থানার পুলিশ। উপযুক্ত শাস্তি চায় নির্যাতিতার পরিবার ও প্রতিবেশী।

অন্যদিকে উত্তর ২৪ পরগনা জেলার বনগাঁ পেট্রাপোল খলিদপুরে মানসিক ভারসাম্যহীন এক যুবতীকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার হলেন বিমল সরকার নামে এক ব্যক্তি। ধৃত ব্যক্তির বিরুদ্ধে নির্যাতিতার পরিবারের অভিযোগ, ওই যুবতী মানসিক ভারসাম্যহীন হাওয়ায় তার মা পাশের বাড়িতে রেখে কাজে যেতেন। সেই সুযোগ নিয়ে প্রতিবেশী বিমল সরকার মানসিক ভারসাম্যহীন ওই যুবতীকে পার্শ্ববর্তী একটি বাগানে নিয়ে গিয়ে দিনের পর দিন ধরে ধর্ষণ করে। যুবতীর মায়ের লিখিত অভিযোগ পেয়ে অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করেছে পেট্রাপোল থানার পুলিশ। ধৃতকে সোমবার বনগাঁ মহকুমা আদালতে তোলা হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here