FotoJet-109

ডেস্ক: কখনও নরমে কখনও গরমে। এভাবেই চলে শিবসেনা-বিজেপি সম্পর্ক। তবে ভোট আসতেই একজন আরেকজনের প্রয়োজন টের পেয়েছে। ফলে, মধু এখন ঝরে পড়ছে ‘প্রচণ্ড রাগী’ শিবের গলা দিয়ে। দু’দিন আগে পর্যন্ত যে শিবসেনা মোদীর নামে সমালোচনার তাণ্ডব করে বেরিয়েছে, তারাই এখন মোদীকে হাতিয়ার করে বিরোধীদের ‘মাথাশূন্য’ বলে কটাক্ষ করছে। উদ্ধব ঠাকরের কথায়, ‘আমাদের কাছে নেতা রূপে নরেন্দ্র মোদী রয়েছেন। আপনাদের কাছে কেউ আছেন?’

জোট থাকবে না ভাঙবে এই ধরনের আলোচনার মাঝেই নিজেদের ‘বন্ধন’ অটুট রাখার সিদ্ধান্ত জানুয়ারি মাসে নিয়ে ফেলে শরিক সঙ্গীরা। নরেন্দ্র মোদীর নীতিগুলি নিয়ে তাদের এতদিন সমস্যা থাকলেও এখন শুরু হয়েছে তাদের মধুচন্দ্রিমা। এখন শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরে বলছেন, ‘বিজেপির সঙ্গে মতপার্থক্য ছিল ঠিকই, কিন্তু সেগুলি আমরা পেরিয়ে এসেছি। সকল জল্পনায় জল পড়ে গিয়েছে। দুই দলেরই আদর্শ হল হিন্দুত্ব এবং জাতীয়তাবাদ।’ এদিন গুজরাতের গান্ধীনগরে অমিত শাহের সঙ্গে মনোনয়ন পেশ করার পর এমনই মধুমাখা কথা শোনা যায় তাঁর মুখে। বালাসাহেব ঠাকরের প্রসঙ্গ টেনে উদ্ধব বলেন, ‘আমার বাবা বলতেন হিন্দুত্ব আমাদের শ্বাস প্রশ্বাসে রয়েছে, যেটা ছাড়া আমরা বাঁচতে পারব না।’ এই কথা শুনেই জনতার ভিড় থেকে উঠে আসে ‘ভারত মাতা কি জয়’ স্লোগান।

অথচ বিগত পাঁচ বছরে এই ‘মিষ্টি সম্পর্ক’ একেবারেই দেখতে পাওয়া যায়নি দুই শরিকদলের মধ্যে। ঘনঘন বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে নরেন্দ্র মোদী ও কেন্দ্রীয় সরকারকে তীব্র আক্রমণ করা স্বভাবে দাঁড়িয়ে গিয়েছিল শিবসেনার। এমন কী মতবিরোধ ছিল আসন সমঝোতা নিয়েও। শেষ পর্যন্ত ৫০-৫০ সমীকরণে আসন ভাগাভাগি করে রফা হয় সমস্যা। এরপরই যেন রাতারাতি নতুন রসায়ন খুঁজে পেয়েছে মহারাষ্ট্রের জোটসঙ্গীরা। এই নিয়ে বিরোধীদের উপর আক্রমণ হেনে উদ্ধব বলেন, ‘শিবসেনা আর বিজেপির খারাপ সময় দেখে অনেকেই আনন্দ করছিল। কিন্তু আজ আমায় এখানে দেখে তারা সবাই চুপ।’

২০১৯-এর ভোট যুদ্ধ যে ইস্যুভিত্তিক নেই তা বিলক্ষণ টের পেয়েছে শিবসেনাও। কর্মসংস্থান, বেকারত্ব, মূল্যবৃদ্ধির মতো প্রাথমিক চাহিদাগুলিকে সরিয়ে প্রথম সারিতে জায়গা করে নিয়েছে- পাক বিদ্বেষ, জাতীয়তাবাদ, বালাকোট এয়ার স্ট্রাইক ইত্যাদি ইত্যাদি। তাই সময় বুঝে শিবসেনার এই আনুগত্য যে ভোটের খাতিরেই সেই বিষয়টি জানিয়েই দিচ্ছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। এদিনই মোদী বনাম ‘কে’ বিতর্ককে খুঁচিয়ে তুলে দেয় শিবসেনা। বিরোধী দলের মহাজোটকে কটাক্ষ করে উদ্ধব বলেন, ‘৫৬টি বিরোধী দল হাত মিলিয়েছে। কিন্তু তাদের হৃদয়ের মিলন হয়নি। আমাদের একজন নেতা রয়েছে (নরেন্দ্র মোদী)। আপনাদের নেতা কে? আপনাদের প্রধানমন্ত্রী কে হবে?’

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here