pak_UN

ডেস্ক: পাকিস্তান যতই অস্বীকার করুক, সন্ত্রাসে মদত যে তারা প্রথম থেকেই দিয়ে আসছে তা গোটা বিশ্বেরই জানা। সেই মতো পদক্ষেপ নিতেও এখন চূড়ান্ত তৎপর হয়েছে রাষ্ট্রপুঞ্জ। বিশেষত, ভারতে পুলওয়ামা হামলার পর পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সরব হয়েছে ফ্রান্স, আমেরিকা, রাশিয়া সহ বিভিন্ন দেশ। এবার সন্ত্রাসে অর্থ যোগান নিয়ে কড়া বার্তা দিল রাষ্ট্রপুঞ্জ। নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, সন্ত্রাসবাদে সরাসরি অর্থ দেওয়া বা পরোক্ষভাবেও অর্থসাহায্য ফৌজদারি অপরাধ হিসেবে গণ্য হবে এবং কঠোর শাস্তির অন্তর্ভূক্ত হবে। এই প্রস্তাব এনে একটি খসড়া এনেছিল ফ্রান্স সরকার, সেটিতেই সিলমোহর রাষ্ট্রপুঞ্জের।

সন্ত্রাস দমন বিষয়ক এই খসড়ায় রাষ্ট্রপুঞ্জ সিলমোহর দেওয়ায় চরম স্বস্তিতে ভারত। পাকিস্তানের বিরুদ্ধে বিশ্বমঞ্চে ভারতের যে লড়াই তাই স্বীকৃতি পেল। রাষ্ট্রপুঞ্জের এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে ভারত, তবে পাকিস্তানকে একহাত নিতে ছাড়েনি। রাষ্ট্রপুঞ্জে ভারতের প্রতিনিধি জানান, পাকিস্তান ‘ধারাবাহিক অপরাধী’। জইশ, লস্করের মতো জঙ্গি সংগঠনগুলিকে মদত দিয়ে বারবার সন্ত্রাস করে এসেছে পাকিস্তান। ক্রমাগত, তাদের অর্থসাহায্য করে গেছে পাক সরকার, হুঁশিয়ারি সত্ত্বেও এই সাহায্য বন্ধ হয়নি। এতদিন ধরে, শুধুমাত্র আলোচনার মাধ্যমেই পরিস্থিতি বদলানোর বিষয় বলা হয়েছে, তবে এই সিদ্ধান্ত নিয়ে সম্ভবত সন্ত্রাস প্রসঙ্গে প্রথম বড় পদক্ষেপ নিল রাষ্ট্রপুঞ্জ।

 

ভারতের প্রতিনিধি আরও জানিয়েছেন, সন্ত্রাসে অর্থ যোগানোর তথ্য নিয়ে তদন্ত সংক্রান্ত কাজ করে নিরাপত্তা পরিষেদর ফাইনান্সিয়াল অ্যাকশন টাস্ক ফোর্স বা এফএটিএফ। নয়া প্রস্তাব অনুসারে, বিশ্বের ৫০টিরও বেশি দেশের ওপর চাপ তৈরি করতে পারবে এই টাস্ক ফোর্স। কিন্তু পাকিস্তান কতটা দমে যাবে সেই নিয়ে চিন্তা থেকেই যাচ্ছে। তাঁর মতে, এই প্রস্তাব পাশ হওয়ায় কিছুটা চাপে অবশ্যই পড়বে পাকিস্তান, কিন্তু তারাও সন্ত্রাসে অর্থ সাহায্য দিতে নতুন কৌশল আনবে। পাশাপাশি, চিন পাকিস্তানকে যেভাবে সাহায্য করে যাচ্ছে, তাতে পাকিস্তানের মনোবল আরও বেড়ে যাবে। এমনিতেই মাসুদ আজহারকে নিয়ে ইসলামাবাদকে আড়াল করে রেখেছে বেজিং, হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে আমেরিকাকেও। সেই জায়গায় দাঁড়িয়ে রাষ্ট্রপুঞ্জের এই সিদ্ধান্ত কতটা কার্যকরী হবে তা সময়ই বলবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here