ডেস্ক: ধর্ষণের অভিযোগ করেছিলেন স্থানীয় এক বিজেপি বিধায়কের বিরুদ্ধে। বিচার চেয়ে মুখ্যমন্ত্রীর যোগী আদিত্যনাথের বাসভবনের সামনে আত্মহত্যারও চেষ্টা করেছিলেন যুবতী। কোনওরকমে তাঁকে সামলায় প্রশাসন। তবে পুলিশ হেফাজতে থাকাকালীন মৃত্যু হল অভিযোগকারী ওই যুবতীর বাবার। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের উন্নাওয়ে। ঘটনায় খুব স্বাভাবিকভাবে চাপে পড়েছে উত্তরপ্রদেশের বিজেপি সরকার।

জানা গেছে, বিচার বিভাগীয় হেফাজতে থাকাকালীন রবিবার তলপেটে প্রচণ্ড ব্যাথার কারণে হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাঁকে। সেখানে মৃত্যু হয় তাঁর। তবে পরিবারের অভিযোগ, হেফাজতে থাকাকালীন মারধোরের কারণে অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। তারপরই মৃত্যু হয় তাঁর। এই ঘটনার জেরে দুইজন অফিসার ও চারজন কনস্টেবলকে সাসপেন্ড করেছে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ। এই ঘটনার জেরে সাংবাদিকদের ডিআইজি প্রবীণ কুমার বলেন, এই ঘটনায় দোষীরা কড়া শাস্তি পাবে। এবং যেহেতু বিচারবিভাগিয় হেফজতে মৃত্যু হয়েছে ওই ব্যক্তির সেইকারনের এই ঘটনার তদন্ত হবে ম্যাজিস্ট্রেট পর্যায়ে।

উল্লেখ্য, কিছুদিন আগেই ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্তদের শাস্তির দাবীতে যোগীর বাসভবনের সামনে আত্মহত্যার চেষ্টা করে ওই তরুণীর পরিবার। অভিযোগ ছিল, গতবছর তাঁকে ধর্ষণ করেন উত্তরপ্রদেশের উন্নাওয়ের বিজেপি বিধায়ক কূলদীপ সিং সেনগার ও তাঁর সঙ্গিরা। সেনগার বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করা হলেও কোনও ব্যবস্থা নেয়নি পুলিশ। উল্টে পুলিসি পশ্রয়ে অভিযোগ দায়ের হওয়ার পর থেকে তাঁর পরিবারকে রীতিমত হুমকি ও তাঁর বাবাকে মারধোর করা হয়েছে বলে অভিযোগ। শুধু তাই নয়, সেই ঘটনায় দুষ্কৃতীদের গ্রেপ্তার করার পরিবর্তে তাঁর বাবাকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে বলে অভিযোগ। তবে সেনগারের দাবি, তাঁকে ও তাঁর পরিবারকে বদনাম করতেই এইসব করছে ওই তরুণী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here