news bengali

মহানগর ওয়েবডেস্ক: হংকংয়ের মর্যাদা, করোনা ভাইরাস ইত্যাদি বিষয় নিয়ে চিন ও আমেরিকার মধ্যে সম্পর্ক ক্রমশই খারাপ হচ্ছে। বিশেষ করে বর্তমান সময়ে করোনা পরিস্থিতি নিয়ে একেবারে খোলাখুলি ভাবেই চিনের দিকে তোপ দেগেই চলেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এমতাবস্থায় চিনের বিদেশমন্ত্রী দাবি করলেন, দ্বিতীয় ঠান্ডা যুদ্ধ বা কোল্ড ওয়ারের মুখে দাঁড়িয়ে দুই দেশ।

এক সাংবাদিক বৈঠকে চিনের বিদেশমন্ত্রী ওয়াং ওয়াই বলেন, ‘আমরা জানতে পেরেছি আমেরিকায় বেশ কিছু রাজনীতিবিদ চিন-মার্কিন সম্পর্ক খারাপ করার জন্য উঠে পড়ে লেগেছেন। একই সঙ্গে তারা দুই দেশকে নতুন ঠান্ডা যুদ্ধের দিকে ঠেলে দিচ্ছেন। ওনাদের এই প্রচেষ্টা খুবই ভয়ঙ্কর হতে চলেছে।’

এছাড়া তিনি আরও বলেন, ‘দুই দেশেরই সমাজতন্ত্র একেবারেই আলাদা। কারণ দুই দেশের মানুষ দুই রকম। চিনের মানুষদের সিদ্ধান্তকে সম্মান করা উচিত আমেরিকার। তবে দুটি দেশ আলাদা রকম হলেও তারা যে একসঙ্গে কাজ করতে পারে না, তা নয়।’ এছাড়া, এর আগে চিনা বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র দাবি করেছিলেন, চিনের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে আমেরিকার নাক গোলানো অবিলম্বে বন্ধ করতে হবে।

উল্লেখ্য, করোনা নিয়ে চিনের ওপর বেজায় রেগে ডোনাল্ড ট্রাম্প। শি জিংপিংয়ের দেশ থেকে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে যেভাবে আমেরিকা সহ গোটা বিশ্বকে তছনছ করে দিয়েছে, তা সহ্য করতে পারছেন না মার্কিন রাষ্ট্রপতি। তাই গোঁসা করে কয়েকদিন আগেই তিনি স্পষ্টত জানিয়ে দিয়েছেন, আমি শি-র (শি জিংপিং) সঙ্গে কোনও কথা বলতে চাই না, কোনও যোগাযোগ রাখতেও চাই না।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও চিন শুধু সামরিকভাবে বিশ্বের প্রধান দুই শক্তি নয়। এরা বিশ্বের প্রথম ও দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতিই বটে। এই দুই দেশের মধ্যে যদি আর্থিক লেনদেন বন্ধ হয়ে যায় তবে এর পরোক্ষ প্রভাব গোটা বিশ্বে পড়বে। সম্পর্কে দুই দেশের মধ্যে ছেদ পড়বে কিনা তা সরাসরি না জানানো হলেও ট্রাম্প জানিয়ে দিয়েছেন, তিনি জিংপিংয়ের সঙ্গে কথা বলতে আগ্রহী নন। ফলে তাঁর ইঙ্গিত সেদিকেই বলে মনে করা হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here