trump imran
  • মঙ্গলবার সুইজারল্যান্ডের দাভোস বৈঠক করেন ডোনাল্ড ট্রাম্প ও ইমরান খান
  • ফের ট্রাম্পকে বলতে শোনা যায়, সমস্যার সমাধানে তিনি ‘সহযোগী’ হতে প্রস্তুত
  • যদিও ভারত আগে থেকেই জম্মু কাশ্মীরকে অভ্যন্তরীণ ইস্যু বলে জানিয়ে রেখেছে

মহানগর ওয়েবডেস্ক: পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গে দেখা হলেও কী জানি হয় মার্কিন রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্পের। ভারতকে চাপে রাখতে নাকি ইসলামাবাদকে খুশি করতে জানা নেই, তবে বারবার জম্মু-কাশ্মীর প্রসঙ্গ তোলেন ট্রাম্প। একই সঙ্গে মধ্যস্থতার ‘অফার’ও দেন। ঠিক যেমন মঙ্গলবার সুইজারল্যান্ডের দাভোস বৈঠক করেন ডোনাল্ড ট্রাম্প ও ইমরান খান। সেখানেই নতুন করে কাশ্মীর ইস্যুর উত্থাপন হয়। আগের সুরের পুনরাবৃত্তি ঘটিয়ে ট্রাম্পকেও বলতে শোনা যায়, সমস্যার সমাধানে তিনি ‘সহযোগী’ হতে প্রস্তুত। যদিও ইতিমধ্যেই ভারত একাধিকবার এই প্রসঙ্গে জানিয়ে রেখেছে, জম্মু-কাশ্মীর ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়। তাও ট্রাম্প বারবারই একই কথা আউরে যাচ্ছেন।

গতকাল বৈঠকের পর পাক প্রধানমন্ত্রীকে পাশে বসিয়ে ট্রাম্প বলেন, ‘আমরা কাশ্মীর এবং পাকিস্তান-ভারতের সম্পর্ক নিয়ে ভাবিত। আমি যদি সাহায্য করতে পারি তবে আমরা অবশ্যই তা করব। আমরা এটি খুব নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করেছি এবং নিরীক্ষণে রেখেছি। আফগানিস্তানের ব্যাপারেও আমরা এর আগে এই ভূমিকা পালন করেছি। সৌভাগ্যক্রমে, আমরা এবারও ভারতের সঙ্গে একই দিকে রয়েছি। এটি একটি বড় ইস্যু। আমরা সবসময় আশা করি যে সমাধানের ক্ষেত্রে আমেরিকা তার ভূমিকা ঠিকঠাক পালন করুক।’

অন্যদিকে ট্রাম্পকে পাশে নিয়ে পাক প্রধানমন্ত্রীকে বলতে শোনা যায়, ‘আমরা অনেকগুলি ইস্যু নিয়েই কথা বলতে চেয়েছিলাম৷ যেমন আফগানিস্তান৷ কিন্তু আমাদের বেশিরভাগ আলোচনাটা ভারত নিয়েই হয়ে থাকে৷ কারণ কাশ্মীর অবশ্যই এটা একটা বড় ইস্যু৷ আমরা সব সময়ই আশা করি যে অ্যামেরিকাই পারবে এই বিষয়ে সমাধান সূত্র বের করত৷ কারণ অন্য কোনও দেশের পক্ষে এটা সম্ভব নয়।’ পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী অবশ্য যতই সাহায্যের আশা করুন না কেন, ভারত আগে থেকেই একে অভ্যন্তরীণ ইস্যু বলে জানিয়ে রেখেছে। ট্রাম্প চাইলেও মার্কিন সেনেট অবশ্য কাশ্মীর ইস্যুতে নাক গলাতে রাজি নয়।

প্রসঙ্গত, শিগগির ভারত সফরে আসতে চলেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। সেই সময় ফিরে যাওয়ার পথে তিনি পাকিস্তানেও ঢু মেরে যাবেন কিনা তা জানতে চাওয়া হয়েছিল। উত্তরে ট্রাম্প বলেন, ‘আমরা এখন দেখা করছি। তাই পাকিস্তানে যাওয়ার খুব একটা দরকার নেই। কিন্তু আমি পাকিস্তানের জনগণকে শুভেচ্ছা জানাতে চাই। আমাদের সম্পর্ক খুবই ভাল।’

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here