MOSCOW REGION, RUSSIA - JULY 2, 2020: Russia's President Vladimir Putin holds a video conference meeting of the Pobeda [Victory] Russian Organizing Committee at Novo-Ogaryovo residence. Alexei Druzhinin/Russian Presidential Press and Information Office/TASS (Photo by Alexei DruzhininTASS via Getty Images)

মহানগর ওয়েবডেস্ক:রাশিয়ার পক্ষ থেকে আমেরকাকে ভ্যাকসিন পাঠানোর প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। কিন্তু আমেরিকা সেই প্রস্তাবে সরাসরি ‘না’ বলে দিয়েছে। এই প্রসঙ্গে সংবাদ মাধ্যমকে রাশিয়ার এক পদস্থ আধিকারিক জানিয়েছেন, ‘’আমেরিকা এখনও রাশিয়ার চিকিৎসা বিজ্ঞানের অগ্রগতি খোলা মনে মেনে নিতে পারেনি।‘’ রাশিয়ার দিক থেকে এই প্রস্তাব ‘’অভূতপূর্ব সহযোগিতার’’ দৃষ্টান্ত ছিল জানিয়ে ওই আধিকারিক বলেন, ‘’আমেরিকার দিক থেকে রাশিয়ার প্রতি একটা অবিশ্বাস রয়েই গিয়েছে। এবং আমরা মনে করি এই অবিশ্বাসের কারণেই রাশিয়ার ভ্যাকসিনের পরীক্ষা ও চিকিৎসা সহ গোটা প্রযুক্তি আমেরিকা গ্রহণ করতে পারেনি।‘’

এই প্রসঙ্গে হোয়াইট হাউসের প্রেস সচিব কাইলি ম্যাকনানি জানিয়েছেন, প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে রাশিয়ার ভ্যাকসিন সম্পর্কে তথ্য দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, আমেরিকার ভ্যাকসিন এখন পরীক্ষার তৃতীয় পর্যায়ে রয়েছে যে প্রক্রিয়াটি কঠোর নজরদারির মধ্যে দিয়ে পরিচালিত হচ্ছে। অন্যান্য মার্কিন আধিকারিকদের অভিমত হল রাশিয়ার ভ্যাকসিনটি এতটাই ‘’আধ সেঁকা’’ যে ওটা সম্পর্কে কোনও আগ্রহই আমেরিকাতে তৈরি হয়নি। ‘’কোনও ভাবেই আমেরিকা ওটা বাঁদরের ওপরও প্রয়োগ করবে না, মানুষ তো অনেক দূরের ব্যাপার’’ বলে মন্তব্য করেন মার্কিন সরকারের গণস্বাস্থ্য দফতরের এক আধিকারিক।

গত মঙ্গলবার রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ঘোষণা করে দেন যে রাশিয়া করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন তৈরি করে ফেলেছে। পুতিনের মেয়ের ওপর সেই ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হয়েছে এবং সে সম্পূর্ণ সুস্থ রয়েছে। পরীক্ষার ঠিক কোন পর্যায়ে এই ঘোষণাটি করে দেওয়া হল সেটি নিয়ে সারা পৃথিবীর বিশেষজ্ঞরাই যথেষ্ট সন্দেহ প্রকাশ করেছেন।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সাম্প্রতিক ঘোষণা অনুযায়ী সারা বিশ্ব জুড়ে প্রায় ২৯টি ভ্যাকসিন মানব দেহে ট্রায়ালের স্তরে রয়েছে। এই অবস্থায় যে ভ্যাকসিনটি প্রথম বাজারে আসবে তাদের প্রস্তুতকারী সংস্থা কী পরিমাণ ব্যবসা করবে সেটা সহজেই অনুমাণ করা যায়। রাশিয়া সেই দিক থেকে ইতিমধ্যেই অনেকটা লাভবান হয়েছে। একাধিক দেশ ভ্যাকসিন নেওয়ার জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়েছে জানিয়ে রাশিয়ার পক্ষ থেকে জানানো হয়, আমেরিকার প্রস্তুতকারী সংস্থারা চাইলে তাদের দেশে রাশিয়ার ভ্যাকসিন বানাতে পারে।

রাশিয়ার সূত্র অনুযায়ী সরকারি ভাবে আমেরিকা রাশিয়ার ভ্যাকসিন গ্রহণে অনিচ্ছা দেখালেও কিছু মার্কিন ওষুধ প্রস্তুতকারী সংস্থা রাশিয়ার ভ্যাকসিন সম্পর্কে আগ্রহ দেখিয়েছে। তাদের নাম না জানালেও রাশিয়ার সরকারি মহলের বক্তব্য স্পুটনিক ভি আমেরিকার বহু মানুষের প্রাণ বাঁচিয়ে দিতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here