national news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: প্রস্তুতির কোন শেষ নেই, বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন আবিষ্কার এর চেষ্টায় দিনরাত এক করছেন বিজ্ঞানী, গবেষকরা। ইতিমধ্যে একাধিক ভ্যাকসিনের ট্রায়াল শুরু হয়েছে এবং তা সাফল্য পাচ্ছে বলেও দাবি। কিন্তু ফের একবার ভ্যাকসিন নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। তাদের স্পষ্ট বার্তা, ২০২১ সালের আগে করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন বাজারে আসা প্রায় অসম্ভব। সুতরাং তার আগে ভ্যাকসিনের প্রত্যাশা না করাই শ্রেয় বিশ্ববাসীর কাছে। 

ভারতের পরে দাবি করা হয়েছে অগাস্ট মাসেই করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন আসতে পারে। যদিও এই দাবিকে নস্যাৎ করেছে বিজ্ঞানী এবং গবেষকদের একাংশ। তাদের মতে, ডেডলাইন অনুযায়ী ভ্যাকসিন আবিষ্কার অসম্ভব। কিন্তু অন্যদিকে ডিসেম্বরের মধ্যে ভ্যাকসিন আসার কথা এমন খবরও ঘুরছে। আবার কোন কোন বিজ্ঞানী বা গবেষক জানিয়ে দিয়েছেন, ২০২২ সালের আগে ভ্যাকসিন হয়তো বের করা সম্ভব হবে না। সব মিলিয়ে চূড়ান্ত জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন নিয়ে। তবে এদিন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার জরুরী বিভাগের এক কর্তা এক অনুষ্ঠানে দাবি করেন, আগামী বছরের আগে সাধারণ মানুষ করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন হাতে পাবেন না। বাস্তব ভাবে সেটি সম্ভব নয়।

হু জানাচ্ছে, ভ্যাকসিন বের হলে তা শুধুমাত্র ধনীদের বা গরিবদের জন্য নয়, গোটা বিশ্ববাসীর জন্য বের হবে। তাই প্রত্যেক মানুষের কাছে যেন এই ভ্যাকসিন পৌঁছে যায় তা নিশ্চিত করতে হবে। তার আগে করোনাভাইরাস দমনকারী যথার্থ ভ্যাকসিন আবিষ্কার করা বড় কাজ। বিভিন্ন দেশের একাধিক বিজ্ঞানী এবং গবেষকরা ভ্যাকসিন তৈরীর পথে বেশ খানিকটা পথ এগিয়েছেন। কিন্তু আগামী বছরের আগে বাজারে ভ্যাকসিন আসা প্রায় অসম্ভব। 

ইতিমধ্যে অক্সফোর্ড, সেরাম ইনস্টিটিউট সহ একাধিক সংস্থা ভ্যাকসিন তৈরীর লক্ষ্যে অনেক দূর এগিয়েছে। প্রথম পর্যায়ের ট্রায়াল’ সফল হয়েছে বেশ কিছু ক্ষেত্রে। এবার দ্বিতীয় এবং তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়ালের অপেক্ষা। 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here