kolkata news

মহানগর ডেস্ক : মমতাকে ‘দেশনেতা’ আখ্যা কংগ্রেস নেতা কমল নাথের। গতকাল, বুধবার রাজভবনে তৃতীয়বারের জন্য মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নিয়েছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনিই যে আজকের নেতা এদিন তা দ্ব্যর্থহীন ভাষায় জানিয়ে দিয়েছেন মধ্যপ্রদেশের প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি।

বিপুল জনাদেশ নিয়ে তৃতীয়বারের জন্য মুখ্যমন্ত্রীর কুর্সিতে বসেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।২রা মে বিধানসভা নির্বাচনের ফল ঘোষণার পর থেকেই প্রশংসার বন্যায় ভেসে যাচ্ছেন তিনি। ফোন করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ফোন করেছেন বিরোধীরাও। তার মধ্যে তামিলনাড়ুর এম কে স্টালিন, উত্তর প্রদেশের অখিলেশ, মায়াবতী কে নেই সেই তালিকায়! কংগ্রসের তরফে খোদ সোনিয়া গান্ধি অভিনন্দন জানিয়ে ফোন করেছেন মমতাকে। এহেন অবস্থায় কমল নাথের প্রশস্তি যথেষ্টই তাৎপর্যপূর্ণ।

এক সাক্ষাৎকারে কমলনাথ বলেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আজকের দেশ নেতা। তিনি যেমন বিজেপিকে হারিয়েছেন, তেমনি হারিয়েছেন বিভিন্ন কেন্দ্রীয় সংস্থাকেও। তিনি বলেন, মমতা হারিয়েছেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রীকেও।

চলতি বিধানসভা নির্বাচনে বাংলাকে পাখির চোখ করেছিল মোদি-অমিত শাহের দল। তাই নির্বাচন ঘোষণা হওয়ার পরের দিন থেকেই এ রাজ্যে দিল্লি থেকে উড়ে আসতে থাকেন একের পর এক কেন্দ্রীয় নেতানেত্রী। এর মধ্যে খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এ রাজ্যে ২১টি জনসভা করেছেন। আর জনসভা ও রোড শো মিলিয়ে তার ছ গুণ বেশি করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। তার পরেও বঙ্গবিজয় অধরা থেকে গিয়েছে গেরুয়া শিবিরের। মুখ থুবড়ে পড়েছে পদ্ম-দল। সেই কারণেই মমতা প্রধানমন্ত্রীকেও হারিয়েছেন বলে জানান কমলনাথ।

বর্ষীয়ান এই রাজনীতিবিদ বলেন, টানা তিনবার জিতে ফের মুখ্যমন্ত্রী হয়েছেন মমতা। এই মুহূর্তে তিনি আমাদের দেশের নেত্রী। ভীষণ লড়াই শেষে শেষতক জয়ী হয়েছেন তিনি। তবে মমতা ইউপিএ-র মুখ হচ্ছেন কিনা, সে ব্যাপারে এখনই কিছু বলতে চাননি প্রবীণ এই রাজনীতিবিদ।      

  

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here